আংশিক ঋণ অবলোপন

0
357

আপনি ঋণ আংশিক সমন্বয় (Partial Write Off) করতে পারবেন, এমন কোনো সার্কুলার নেই। আবার আপনি করতে পারবেন না, এমন কোনো সার্কুলারও নেই। কিন্তু, আমরা যতটুকু খোঁজ নিয়ে জেনেছি, বাংলাদেশ ব্যাংক বিষয়টি Discourage করে বা Allow করে না। কাজেই বাংলাদেশ ব্যাংকের পূর্বানুমোদন ছাড়া এটি করা অনুচিৎ হবে।

নোটঃ যারা ঋণ অবলোপন বিষয়ে ভালভাবে অবগত নন, তারা অনুগ্রহ করে ঋণ অবলোপন কি? ঋণ অবলোপন করার প্রয়োজনীয়তা আগে পড়ে দেখতে পারেন

আমরা আগের লেখার উদাহরণ দিয়েই শুরু করি। ধরে নেই, আমাদের একটি ঋণ হিসাব মন্দ ও ক্ষতিজনক মানে শ্রেণীকৃত হয়েছে, যার বকেয়া (Outstanding) ২০০ টাকা। Interest Suspense হিসাবে এই ঋণের বিপরীতে জমা আছে ৩০ টাকা। এই ঋণের বিপরীতে একটি জমি বন্ধক দেয়া আছে, যার মার্কেট ভ্যালু ৮০ টাকা এবং ফোর্সড সেল ভ্যালু ৬৪ টাকা। কাজেই, যোগ্য জামানতের মুল্য হচ্ছে ৪০ টাকা (মার্কেট ভ্যালুর অর্ধেক)। কাজেই প্রভিশনিং এর নিয়মানুযায়ী আমরা এই ঋণের বিপরীতে প্রভিশন রেখেছি ১৩০ টাকা [(২০০ টাকা– ৩০ টাকা -৪০ টাকা) X ১০০%]। কাজেই এই ঋণহিসাবটি যখন আমরা অবলোপন করবো তখন, প্রভিশন Debit করবো ১৩০ টাকা, Interest Suspense ডেবিট করবো ৩০ টাকা আর বর্তমান বছরের আয় খাত Debit করবো ৪০ টাকা এবং এই সর্বমোট ২০০ টাকা ঋণ হিসাবে Credit করে ঋণ হিসাবটির স্থিতি সম্পূর্ণ সমন্বয় করবো। এটি হচ্ছে ঋণ অবলোপনের বহুল প্রচলিত পদ্ধতি যেখানে ঋণ হিসাবের বকেয়া শূন্য হয়ে যায়।

কিন্তু এই পদ্ধতির একটি অসুবিধা আছে। আমি Asset Overstate হওয়া ঠেকানোর জন্য ঋণ হিসাবটি সম্পুর্ণ অবলোপন করে আমার Balance Sheet এর Asset part হতে ২০০ টাকা মুছে ফেললাম। কিন্তু এই ঋণের বিপরীতে যে জামানত নেয়া আছে ৮০ টাকা, সেটি কিন্তু আমরা অগ্রায্য করলাম। কারণ ভবিষ্যতে এই জমি বিক্রি করে আমি আমার ঋণের অন্তত ফোর্সড সেল ভ্যালু না হলেও হয়ত মার্কেট ভ্যালুর অর্ধেক বা ৪০ টাকা আদায় [বা যেকোন পরিমাণ] করতে পারবো। কাজেই ২০০ টাকা Asset Overstate ঠেকাতে গিয়ে আমরা কিন্তু কমপক্ষে ৪০ টাকা Asset Understate করলাম। এই সমস্যা এড়ানোর কি উপায় থাকতে পারে?

কিন্তু যদি আমরা শুধুমাত্র Interest Suspense থেকে Debit করি ৩০ টাকা আর Provision থেকে Debit করি ১৩০ টাকা এবং এই ১৬০ টাকা Credit করি ঋণ হিসাবে, তাহলে ঋণ হিসাবের Balance দাড়াবে ৪০ টাকা যা কিনা ঋণের বিপরীতে যে জমি বন্ধকীকৃত আছে তার মার্কেট ভ্যালুর ৫০%। অর্থাৎ ভবিষ্যতে কমপক্ষে যত টাকা জমি বিক্রি করে আদায় হবার সম্ভাবনা আছে, ততটুকু পরিমাণ ঋণের বকেয়া আমরা Books এ রেখে দিলাম। এটি হচ্ছে Partial Write Off বা ঋণের আংশিক সমন্বয়। এর মাধ্যমে আমরা আমাদের Balance Sheet কে একই সাথে Overstate ও Understate হওয়া থেকে রক্ষা করলাম।

যৌক্তিকতা
Balance Sheet এ Asset Understate যেন না হয়, এটিই সবচেয়ে জোরালো যুক্তি আর বাকীটা হচ্ছে বাস্তবতা। বর্তমানে একদিকে খেলাপী ঋণ হুহু করে বাড়ছে, আর তার ফলশ্রুতিতে ব্যাংকগুলোর প্রভিশনিং করার সামর্থ্য কমছে আর অপরদিকে আমানত ও বিনিয়োগ হিসাবের সুদের হারের ব্যবধান কমিয়ে আনার ফলে মুনাফার উপর প্রবল নিম্নমূখী চাপ তৈরী হয়েছে। এতে করে খুব শ্রীঘ্রই ব্যাংকগুলোকে প্রভিশন ঘাটতির মুখে পরতে হতে পারে। [প্রভিশন ঘাটতিঃ প্রয়োজনীয় প্রভিশন করতে না পারা, অন্য কথায় ব্যাংকগুলো যে প্রফিট করেন, তা থেকে যা বিপদের দিনের জন্য জমা করে, তাই হচ্ছে প্রভিশন। ব্যাংকগুলো যদি মুনাফাই করতে না পারেন, প্রভিশন করার টাকা পাবে কোথায়?] সেক্ষেত্রে ব্যাংকগুলোকে যদি বলা হয়, অতিরিক্ত প্রভিশন Build up কর বা Current year’s Income ডেবিট করে ১০০% বকেয়া Write Off কর, তাহলে অনেক ব্যাংকই আর Write Off করতে পারবেনা, ফলে তাদের Balance Sheet এর Asset পার্ট দিন দিন অনাবশ্যকভাবে বাড়তেই (Overstate) থাকবে।

কার্টেসিঃ Mybank BD

Disclaimer/ দাবি অস্বীকার: আমাদের এই লেখাগুলো কেবলমাত্র শিক্ষার জন্য প্রকাশিত। আমাদের দেওয়া ব্যাখ্যাগুলো যদি ভুল বা অনুচিত বলে মনে হয়, তবে অনুগ্রহ করে আপনার মতামত কিংবা পরামর্শ নির্দ্বিধায় কমেন্ট বক্সে শেয়ার করুন অথবা আমাদেরকে ইমেইলে জানাতে পারেন। আমরা সেই অনুযায়ী আমাদের লেখায় সংশোধন করব। এছাড়াও আমাদের কিছু কিছু লেখা বাংলাদেশ ব্যাংকের সার্কুলার অনুযায়ী প্রকাশিত হয়ে থাকে, যা সময় সময় বাংলাদেশ ব্যাংকের সার্কুলার অনুযায়ী পরিবর্তন হয়ে থাকে।

Leave a Reply