ম্যানেজার কে? ম্যানেজারের প্রকারভেদ

0
771

আপনি একজন ম্যানেজার। আপনার অধীনে কয়েকজন কর্মকর্তা-কর্মচারী রয়েছে। তাদের দিয়ে কাজ করে নেয়ার দায়িত্ব আপনার। আপনার দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে আপনার ব্যক্তিত্ব ফুটে উঠবে। মাঝে মাঝে নিজেকে পরীক্ষা করুন- আপনি কেমন ম্যানেজার। প্রতিটি ব্যাংকের শাখা ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে প্রধান কর্মকর্তা হলেন ব্যাংক ম্যানেজার। তিনি নিজ ব্যাংক শাখার প্রশাসনিক কার্যক্রম, বিপণন, প্রশিক্ষণ কার্যক্রম, ঋণ প্রদান, আমানত গ্রহণ, গ্রাহক সেবা এবং নিরাপত্তার জন্য দায়ী। সার্বিকভাবে শাখার সকল কার্যক্রম তিনিই পরিচালনা করে থাকেন।

Who is Manager (ম্যানেজার কে)?
Manager শব্দটি ইংরেজী। এর আভিধানিক অর্থ- অধ্যক্ষ, পরিচালক, কার্যাধিক্ষ, কর্মকর্তা, ব্যবস্থাপক, শাসক ইত্যাদি। তবে এখানে Manager শব্দটি ব্যবস্থাপক বা শাখা প্রধান অর্থে ব্যবহার করা হয়েছে। পারিভাষিক অর্থে- ব্যবস্থাপনার কার্যটি যে বা যিনি সম্পাদন করে থাকেন তাকে ব্যবস্থাপক বলা হয়।

Oxford Dictionary of English এ ম্যানেজারের সংজ্ঞায় বলা হয়েছে-
a person responsible for controlling or administering an organization or group of staff, a person regarded in terms of their skill.
অর্থাৎ একটি প্রতিষ্ঠান বা স্টাফ গ্রুপ, তাদের দক্ষতার পরিপ্রেক্ষিতে বিবেচিত একজন ব্যক্তির নিয়ন্ত্রণ বা প্রশাসনের জন্য দায়ীত্ব প্রাপ্ত একজন ব্যক্তি।

Types of Manager (ম্যানেজারের প্রকার)
কাজ বা ব্যবহারের ধরন অনুযায়ী ব্যাংকে ম্যানেজার দুই ধরণ রয়েছে-
১) Cow boy Type Manager (রাখাল টাইপ ম্যানেজার) ও
২) Sponsor Type Manager (স্পনসর টাইপ ম্যানেজার)।

১) Cow boy Type Manager (রাখাল টাইপ ম্যানেজার)
এই ধরণের ম্যানেজার সব সময় ভয় দেখিয়ে কাজ আদায় করতে চায়। ঠিক রাখাল যেমন গরুকে লাঠি দিয়ে ভয় দেখিয়ে হাল চাষ করে। যেমন- এই ধরণের ম্যানেজার বলবে: “চাকরি বাঁচাতে হলে এক মাসের মধ্যে টার্গেট পূরণ করতে হবে।” এ ধরণের ম্যানেজার সবাইকে আতঙ্কিত করে রাখে। সবাই টার্গেট নিয়ে ভাববে কী? চাকরী খুঁজতে খুঁজতে সবার জীবন শেষ। ভালরা সব অন্য প্রতিষ্ঠানে চলে যায়। ফলে প্রতিষ্ঠান ধ্বংস হয়ে যায়।

২) Sponsor Type Manager (স্পনসর টাইপ ম্যানেজার)
এরা অধীনস্থদের মনে উদ্দীপনা জাগিয়ে, প্রণোদনা দিয়ে, দিক-নির্দেশনা ও সাহস দিয়ে সবাইকে এগিয়ে নিয়ে যায়। টিম স্পিরিট তৈরী করে, সঠিক দিক নির্দেশনা দিয়ে টার্গেট পূরণের চেষ্টা করে। যেমন- এই ধরণের ম্যানেজার টার্গেট বুঝিয়ে দিয়ে দরকারি রিসোর্স সরবরাহ করে সবাইকে বলবে: “আমরা টার্গেট বুঝে নিয়েছি, কৌশলও বলে দিয়েছি এবং বুঝে নিয়েছি। এবার আমরা টিম হিসেবে কাজ করব। আমিও টিমের একজন। সফলতা আমাদের আসবে। তবে ব্যর্থতার জন্যও প্রস্তুত থাকবো। আমি তো তোমাদের সাথেই আছি। প্রথমবার ব্যর্থ হলে পরের বার সফল হবো। ভুল থেকে শিখবো।” আসলে এই ধরণের ম্যানেজার বিপদে পাশে দাঁড়ায়। ব্যর্থতার দায় নিজের কাঁধে নেয়। সফলতার কৃতিত্ব সবাইকে দেয়। অধীনস্থরা নিশ্চিন্তে কাজ করে যায়। এক্ষেত্রে কখনো কাউকে বিফল হতে দেখা যায় না।

Leave a Reply