হোলসেল বা পাইকারী ব্যাংকিং (Wholesale Banking) কি?

0
871

ব্যাংকিং নিউজ বাংলাদেশঃ খুচরা ব্যাংকিং এর ন্যায় পাইকারী ব্যাংকিং একটি অন্যতম জনপ্রিয় ব্যাংকিং ব্যবস্থা। বর্তমানে বিশ্বের বিভিন্ন স্বনামধন্য ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠান এ ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনা করছে। অর্থনৈতিক চাহিদার বাস্তবতার সাথে তাল মেলাতে হলে ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠানসমূহকে অধিক হারে সৃষ্টিশীল এবং সৃজনশীল কাজে উদ্বুদ্ধ হতে হবে। ব্যাপক সম্পদ এবং বিস্তৃত অভিজ্ঞতা নিয়ে Citizen Bank ক্রেতাদের চাহিদা পূরণের জন্য বিভিন্ন ধরনের সৃজনশীল পাইকারী ব্যাংকিং সেবা চালু করেছে।

Definition of Wholesale Banking (পাইকারী ব্যাংকিং এর সংজ্ঞা)
আর্থিক প্রতিষ্ঠান এবং মার্চেন্ট ব্যাংক সমূহকে সেবা প্রদানের উদ্দেশ্যে বৃহত্তম ব্যাংক সমূহ যে সকল সেবামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকে তাকে Wholesale Banking বা পাইকারী ব্যাংকিং বলে।

Investopedia তে Wholesale Banking এর সংজ্ঞায় বলা হয়েছে-
Wholesale banking refers to banking services between merchant banks and other financial institutions. This type of banking deals with larger clients, such as large corporations and other banks, whereas retail banking focuses more on the individual or small business.
অর্থাৎ পাইকারি ব্যাংকিং বলতে বাণিজ্যিক ব্যাংক এবং অন্যান্য আর্থিক প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ব্যাংকিং পরিষেবাকে বোঝায়। এই ধরনের ব্যাংকিং বৃহত্তর কর্পোরেশন এবং অন্যান্য ব্যাংকের মতো বৃহত্তর ক্লায়েন্টদের সাথে কাজ করে, তবে খুচরা ব্যাংকিং ব্যক্তিগত বা ছোট ব্যবসার উপর বেশি মনোযোগ দেয়।

John Burnett Wholesale Banking এর সংজ্ঞায় বলেন-
Wholesale banking refers the services provided by large banks to large business clients.
অর্থাৎ বৃহত্তর ব্যবসায়িক ক্রেতাদের সেবা প্রদানের উদ্দেশ্যে বৃহত্তর ব্যাংকসমূহ যে কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকে তাকে পাইকারী ব্যাংকিং বলে।

Function of Wholesale Banking (পাইকারী ব্যাংকিং এর কার্যক্রম)
পাইকারি ক্রেতা বৃহত্তর ক্রেতাদের ব্যবসায়ীক কার্যক্রম ও প্রযুক্তিগত কৌশল এর সাহায্যে পাইকারী ব্যাংকিং বা হোলসেল ব্যাংকিং যে সকল ক্ষেত্রে গুরুত্ব প্রদান করে থাকে সেগুলো হলো-
ক) Cash Management (নগদান ব্যবস্থাপনা);
খ) Foreign Exchange (বৈদেশিক বিনিময়);
গ) Payments (পরিশোধ);
ঘ) Trusty (ট্রাস্টি);
ঙ) Custody (তত্ত্বাবধান ও জিম্মা);
চ) Commercial Lendings (বাণিজ্যিক ধার); ও
ছ) Trade Finance (বাণিজ্যিক অর্থায়ন)।

এছাড়া ইলেকট্রনিক ব্যাংকিং এর ক্ষেত্রে ও পাইকারী ব্যাংকিং পরিচালিত হয়ে থাকে। আন্তঃব্যাংকের মাধ্যমে যে সকল ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালিত হয় তাকে পাইকারি ইলেকট্রনিক ব্যাংকিং বলে। সাধারণ পাইকারী ইলেকট্রনিক ব্যাংকিং নিম্নবর্ণিত কার্যক্রম সম্পাদিত হয়ে থাকে-
ক) Cash Management (নগদান ব্যবস্থাপনা);
খ) Ware Trans (ওয়ার ট্রানস); ও
গ) Corporate Automated Clearing House (CACH) [প্রাতিষ্ঠানিক স্বয়ংক্রিয় নিকাশ ঘর] ইত্যাদি।

আধুনিক পাইকারি ব্যাংক নিম্নলিখিত কাজে নিয়োজিত থাকে-
ক) Finance wholesaling (ফাইন্যান্স হোলসেলিং);
খ) Underwriting (আন্ডাররাইটিং);
গ) Market making (বাজার তৈরি);
ঘ) Consultancy (কনসালটেন্সি);
ঙ) Mergers and acquisitions (অধিগ্রহন ও একত্রীকরণ); ও
চ) Fund management (ফান্ড ব্যবস্থাপনা)।

Leave a Reply