ব্যাংকগুলোর উপর শুধু শুধু দোষ চাপানো কেন?

0
1886

ব্যাংকগুলোর উপর শুধু শুধু দোষ চাপানো এখন একটা প্যাশন হয়ে দাঁড়িয়েছে। কোন কিছু ঘটলেই প্রথমেই আগে ব্যাংকগুলোর উপর দোষ চাপানো হয়। আমরা সাধারণত ব্যাংকের উপর দোষ চাপাই যে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে মর্টগেজ দিয়ে বিনিয়োগ গ্রহন করলে অনেক খরচ বেড়ে যায়। তাই আমরা শুধু চিল্লাই আর বলি………

১. প্রথমেই লাভের % এর হার কমাও।
২. সার্ভিস চার্জ ও প্রসেসিং ফি নেয়া যাবে না।
৩. লোন এপ্লিকেশন ফি ২০০ টাকার বেশি রাখা যাবে না।
৪. আরলি সেটলমেন্ট ফি ও কোন ধরনের গোপন চার্জ থাকবে না।
৫. যত ধরনের চার্জ আছে সেগুলো ওয়েভ করে দিতে হবে।
৬. ভাল ঋণ গ্রহীতাকে প্রণোদনা দাও।

বেশ…! তাই উচিত…! তাহলে যেমন ঋণের প্রবৃদ্ধি বাড়বে, তেমনি ঋণ খেলাপীও বাড়বে। আর আদায়ের দায়িত্ব কিন্তু ব্যাংকারদের।

তাও ভাল কথা…..!
এরপর বিনিয়োগ গ্রহীতা ব্যাংকে এসে ব্যাংকারকে বলবে “আমাকে কিন্তু লাভের % হার কমাইয়া দিতে হবে, সার্ভিস চার্জ রাখা যাবে না ইত্যাদি ইত্যাদি।

কিন্তু একটি বিনিয়োগ প্রসেস করতে যে খরচ হয় তার জন্য বিনিয়োগ গ্রহীতারা কিন্তু চিল্লায় না, বা কখনও তারা এ সংক্রান্ত কথাও বলে না। যে সকল কারনে বিনিয়োগ খরচ বহুগুন বেড়ে যায় নিম্নে তা তুলে ধরা হলো-
১. একটা মিউটেশন করতে ৩০,০০০/- থেকে ১,৫০,০০০/- পর্যন্ত খরচ হয়।
২. ১০০ টাকার পর্চার খরচ ১৫০০/- টাকা পর্যন্ত নেয়।
৩. প্রতিটি পিঠ দলিল উঠাইতে লাগে ৩০০০/- টাকা।
৪. তল্লাশি নিতে ২০০০/- টাকা (১২ বছরের)।
৫. মর্টগেজ করতে সরকারি খরচ ছাড়া অতিরিক্ত ঘুষ লাগে ১৫,০০০/- থেকে ২০,০০০/-
৬. আরো অনেক কিছু আছে যা বলে শেষ করা যাবে না।

এরপর আছে ব্যাংকের খরচ। যা নিম্নে তুলে ধরা হলো-
১. বিনিয়োগের প্রসেসিং ফি।
২. CIB সার্ভিস চার্জ।
৩. স্ট্যাম্প খরচ (Adhesive ও Revenue stamp)।
৪. বীমা খরচ।

আর না হয় না বললাম……
কথা হচ্ছে শুধু ব্যাংকের খরচ কমলেই উদ্যোক্তা তৈরি করা যাবে না। পুরা প্রসেসটার খরচ কমানোর বিষয়ে সবাইকে ভাবতে হবে এবং এর একটি স্থায়ী সমাধান খুঁজে বের করতে হবে।

কার্টেসিঃ সংগৃহীত

Leave a Reply