শেয়ার ব্যবসা করতে কি কি প্রয়োজন হয়?

0

শেয়ার মার্কেটে বিনিয়োগ করতে হলে আপনাকে প্রথমে একটি ব্রোকারেজ হাউজ এর মাধ্যমে বিও (বেনিফিসিয়ারি ওনার) অ্যাকাউন্ট করতে হবে। বিও অ্যাকাউন্ট সাধারণত দুই ধরনের হয়ে থাকে- একক ও যৌথ অ্যাকাউন্ট। নিম্নে বিও (বেনিফিসিয়ারি ওনার) অ্যাকাউন্ট করার নিয়মাবলী নিম্নে উল্লেখ করা হলো-

একক বিও অ্যাকাউন্ট (Individual BO Account) করার জন্য
১। আবেদনকারীর ২ কপি পাসপোর্ট সাইজ ছবি,
২। জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি,
৩। ব্যাংক অ্যাকাউন্টের চেক বইয়ের পাতার ফটোকপি,
৪। নমিনীর ১ কপি পাসপোর্ট সাইজ ছবি ও জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি এবং
৫। বিও অ্যাকাউন্ট চার্জ- ৫০০ টাকা।

যৌথ বিও অ্যাকাউন্ট (Joint BO Account) করার জন্য
১। দ্বিতীয় আবেদনকারীর ২ কপি পাসপোর্ট সাইজ ছবি ও
২। জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি।

বিও ফর্ম সংগ্রহ করে বিও অ্যাকাউন্ট করার পর অ্যাকাউন্টে টাকা ডিপোজিট করে আপনি শেয়ার মার্কেটে শেয়ার ক্রয় বিক্রয়- শুরু করতে পারবেন। প্রাইমারী শেয়ারে আবেদন করার জন্য সাধারণত ৫০০০ টাকা বা এর চেয়ে কিছু কম-বেশি টাকার প্রয়োজন যা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এন্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন এর অনুমোদন সাপেক্ষে নির্ধারণ হয়ে থাকে এবং সেকেন্ডারি শেয়ারে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে সর্বনিম্ন ৫০০ টাকা থেকে শুরু করে বিনিয়োগকারী সর্ব্বোচ যেকোনো পরিমান টাকা দিয়ে বিনিয়োগ শুরু করতে পারবেন।

এটি সম্পূর্ণ নির্ভর করে বিনিয়োগকারীর ইচ্ছা ও সামর্থ্যর উপর। যেকোনো ব্যক্তির জন্য শেয়ার মার্কেটে বিনিয়োগের দ্বার উন্মুক্ত। সেকেন্ডারি শেয়ার ক্রয় করার আগে সেই কোম্পানির ফান্ডামেন্টাল (Earning Per Share, Price Earning Ratio, Reserve, Net Operating Cash Flow Per Share etc.) ও টেকনিক্যাল (RSI, Volume etc.) এনালাইসিস, ম্যানেজমেন্ট এবং পারিপার্শ্বিক অবস্থা দেখে নিতে হবে। পুঁজি,সময় এবং জ্ঞানের সমন্বয়ে বিনিয়োগ করা ভাল এবং পুঁজিবাজারে সবসময় উদ্বৃত্ব বা অলস টাকা বিনিয়োগ করা সমুচিত। DSE Mobile Apps এর মাধ্যমেও সরাসরি ট্রেড করতে পারবেন।

Leave a Reply