করোনায় ডিজিটাল ব্যাংকিংয়ের বিকল্প নেই

0

মহামারি করোনাভাইরাসের এ বিশ্বব্যাপী সংকটের সময়ে যেসব ব্যাংক বেশি ডিজিটালাইজড, তারাই গ্রহকদের সেবায় বেশি এগিয়ে। তাই আগামীতে যেকোনো সংকট মোকাবিলায় ডিজিটাল ব্যাংকিংয়ের বিকল্প নেই বলে মনে করছেন বেসরকারি প্রাইম ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী রাহেল আহমেদ।

আজ রোববার ১৯ এপ্রিল, ২০২০ প্রাইম ব্যাংকের ২৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে ভিডিও কনফারেন্সে এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি এ কথা জানান।

তিনি বলেন, এ ধরনের সংকট আমাদের শিক্ষা দেয় আগামীতে ব্যাংকের বড় বড় শাখা খোলার চিন্তু থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। ছোট ছোট শাখা বুথ ও এজেন্ট ব্যাংকিংয়ে নজর দিতে হবে। ডিজিটাল ব্যাংকিংয়ে জোর দিতে হবে। এখন আমরা দেখছি যে যত বেশি ডিজিটাল সেবা দেবে তারা তত এগিয়ে।

মহামারির আর্থিক ক্ষয়ক্ষতি মোকাবিলায় সরকার বিশেষ প্রণোদনা ঘোষণা করেছে। মন্দ গ্রাহকরা এটি ব্যবহারের সুযোগ নেবে কি-না জানতে চাইলে প্রাইম ব্যাংকের এমডি বলেন, ‘কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্দেশনা অনুযায়ী বিশেষ প্রণোদনার টাকা পাবেন না খেলাপিরা। কাদের মধ্যে টাকা বিতরণ করা যাবে তা স্পষ্টভাবে বর্ণনা করা আছে সেখানে। সুতরাং দুষ্ট লোকদের ধান খেয়ে যাওয়ার কোনো সুযোগ নেই।’

রাহেল আহমেদ জানান, প্রায় গত ২০ দিন ধরে দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা স্থবির হয়ে পড়েছে। আর্থিক খাতকে সচল রাখতে বিভিন্ন প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছে সরকার। একই সঙ্গে ব্যাংকিং খাতে তারল্য বাড়াতে নীতি সহায়তা দিয়ে যাচ্ছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

প্রণোদনা প্যাকেজগুলো ব্যাংকঋণ নির্ভর হলেও অর্থনীতির জন্য ইতিবাচক বলে মনে করেন তিনি। তিনি বলেন, ইতোমধ্যেই বিজিএমইএ এবং কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সঙ্গে আলোচনা করেছে। খুব শিগগিরই পোশাক খাতের প্রণোদনা বাস্তবায়নে অগ্রসর হবে প্রাইম ব্যাংক।

সংকটে ব্যাংক খাতের বা নিজ ব্যাংকের কর্মী ছাঁটাই হবে কি-না জানতে চাইলে বেসরকারি ব্যাংকটির এ এমডি বলেন, ‘আমাদের প্রাইম ব্যাংকের কর্মী ছাঁটাই করার কোনো পরিকল্পপনা নেই। অন্যান্য ব্যাংক কী করবে তা তাদের নিজস্ব বিষয়। তবে আমাদের ব্যাংক খাতের অনেক সহকর্মীদের সঙ্গে কথা বলছি, তারাও এ ধরনের কোনো পরিকল্পনা করছে বলে শুনিনি।’

ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জানান, ইতোমধ্যেই ১ এপ্রিল থেকে ঋণের সুদ হার ৯ শতাংশে আনা হয়েছে। এই বছরের মধ্যে আরও দুই থেকে তিনটি নতুন পণ্য উদ্বোধন করতে যাচ্ছে প্রাইম ব্যাংক। এর মধ্যে নারী উদ্যোক্তাদের সহায়তার জন্য একটি সেবাপণ্য নিয়ে আসা হবে। করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে পণ্যগুলো উদ্বোধন করা হবে বলে জানান তিনি।

বর্তমানে তারল্য সংকট নেই উল্লেখ করে ব্যাংকটির এ প্রধান নির্বাহী বলেন, ‘আমাদের লেনদেন কার্যক্রম স্বাভাবিক রয়েছে। এছাড়া তারল্য সংকট নেই। বর্তমানে ঋণ আমানতের রেশিও (এডিআর) ৮২ শতাংশ। যা কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্ধারিত সীমার অনেক কম।’

এক প্রশ্নের উত্তরে প্রাইম ব্যাংকের ডিএমডি হাবিবুর রহমান জানান, করোনাভাইরাসের কারণে ব্যাংকিং খাতে কী পরিমাণ ক্ষতি হয়েছে তা নিরূপণ করার সময় এখনও আসেনি। প্রাদুর্ভাব শেষ হলেই এটা বোঝা যাবে। তবে চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী কাজ করবে প্রাইম ব্যাংক। বর্তমানে ব্যাংকটির ক্রেডিট কার্ডের সুদের হার ২৭ শতাংশ বলে তিনি জানান।

Leave a Reply