কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ধারণা

0
300

ব্যাংকিং নিউজ বাংলাদেশঃ আধুনিক বিশ্বে কেন্দ্রীয় ব্যাংক যে কোন দেশের অর্থনৈতিক ব্যবস্থায় সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ নিয়ন্ত্রনকারী আর্থিক প্রতিষ্ঠান। বাণিজ্যিক ব্যাংকের ইতিহাস সুপ্রাচীন হলেও কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ইতিহাস ততোটাই প্রাচীন নয়। বাণিজ্যিক ব্যাংকের বিপরীত কর্মপদ্ধতি হিসাবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক আর্থিক সক্ষমতা বৃদ্ধির একটি একচেটীয়া প্রকৃতির প্রক্রিয়া অবলম্বন করে এবং দেশের জাতীয় মুদ্রা ছাপে, যা সাধারণত দেশের আইনত: কার্যকলাপ হিসাবে পরিচালিত হয়।

সপ্তদশ শতাব্দীর মাঝে পৃথিবীর বিভিন্ন স্থানে বিভিন্ন প্রকার বিভিন্ন ব্যাংকের আবির্ভাব হওয়ায় মুদ্রা বাজার নিয়ন্ত্রণের প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়। এই উপলব্ধি থেকে অর্থব্যবস্থার নিয়ন্ত্রক হিসেবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক জন্মলাভ করে। মুদ্রাবাজারকে আপন ইচ্ছা ও গতিতে চলতে না দিয়ে একটি সুসংগঠিত এবং নিয়ন্ত্রণমূলক ব্যাংকিং ব্যবস্থা সৃষ্টি এবং অর্থনীতির কল্যাণ সাধনই এই সৃষ্টির প্রধান উদ্দেশ্য ছিল। সৃষ্টির পর থেকেই মুদ্রা প্রচলন, অর্থ সরবরাহ এবং ঋণ নিয়ন্ত্রণের দায়িত্ব কেন্দ্রীয় ব্যাংক পালন করে আসছে।

১৭ শতকে আধুনিক কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলির প্রথম প্রোটোটাইপ ছিল ব্যাংক অফ ইংল্যান্ড এবং সুইডিশ Reichsbank। প্রথম ঋণদানের শেষ আশ্রয়স্থলের ভূমিকা পালন করে ব্যাংক অফ ইংল্যান্ড। অন্যান্য কেন্দ্রীয় ব্যাংক, বিশেষভাবে নেপোলিয়নের ব্যাংক অফ ফ্রান্স এবং জার্মানির Reichsbank সরকারি সামরিক অভিযান পরিচালনার জন্য প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।

১৮৩৭ থেকে ১৮৬৩ সালের মধ্যে “ফ্রি-ব্যাংকিং সময়” ব্যতীত যুক্তরাষ্ট্রে সরকারী জাতীয় ব্যাংক এবং অসংখ্য রাষ্ট্রীয় চার্টার্ড ব্যাংক প্রতিষ্ঠিত ছিল। ১৮৬৩ সালের ন্যাশনাল ব্যাংকিং অ্যাক্ট কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কেন্দ্র হিসাবে নিউইয়র্কের সাথে জাতীয় ব্যাংকগুলির একটি নেটওয়ার্ক তৈরি করে। পরবর্তীকালে যুক্তরাষ্ট্রে ১৮৭৩, ১৮৮৪, ১৮৯৩ এবং ১৯০৭ সালে ব্যাংকগুলির বিভিন্ন সমস্যার আলোকে অভিজ্ঞতা লাভ করে। এরই প্রতিক্রিয়া অনুসারে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ফেডারেল রিজার্ভ সিস্টেম প্রতিষ্ঠা করে ও আর্থিক কর্মকান্ড এবং ব্যাংকিং কার্যক্রমকে স্থিতিশীল করার জন্য সারা দেশে ১২টি আঞ্চলিক ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করে।

Leave a Reply