গ্রামীণ ব্যাংক, গ্রামীণ ব্যাংকের উদ্দেশ্য, লক্ষ্য ও বৈশিষ্ট্য সমূহ

0
476

ব্যাংকিং নিউজ বাংলাদেশঃ গ্রামীণ ব্যাংক বাংলাদেশের একটি ক্ষুদ্রঋণ প্রদানকারী সংস্থা। এর প্রতিষ্ঠাতা ডঃ মুহাম্মদ ইউনুস। ১৯৭৬ সালে গ্রামীণ ব্যাংক প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। ১৯৮৩ সালে এটি একটি বৈধ এবং স্বতন্ত্র ব্যাংক হিসেবে যাত্রা শুরু করে। গ্রামীণ ব্যাংক মূলত ভূমিহীন এবং দরিদ্র নারীদের পাঁচ জনের ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র দল গঠনের মাধ্যমে ক্ষুদ্রঋণ প্রদান করে এবং এ ঋণের মাধ্যমে তাদের কর্মসংস্থানের সৃষ্টি করে। গ্রামীণ ব্যাংকের ঋণ পরিশোধের হার ৯৮%।

গ্রামীণ ব্যাংক গ্রামের ভূমিহীনদের ঋণ দানের জন্য একটি বিশেষ লগ্নিকারী প্রতিষ্ঠান। জনাব আবদুর রহমান তার Demand & Marketing Aspects of Grameen Bank গ্রন্থে বলেন- গ্রামীণ ব্যাংক এমন একটি বিশেষ ঋণ দান সংস্থা যা গ্রামীণ দরিদ্র জনগোষ্ঠীর বাসস্থান, আয় ও ভোগ বৃদ্ধিতে খুবই তাৎপর্যপূর্ণ। গ্রামীণ ব্যাংকের জন্ম ২ অক্টোবর, ১৯৮৩। প্রাথমিকভাবে এর কাজ শুরু হয় ১৯৭৬ সালে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় হাটহাজারীর জোবরা গ্রামে।

Objectives of Grameen Bank (গ্রামীণ ব্যাংকের উদ্দেশ্য সমূহ)
নিম্নে গ্রামীণ ব্যাংকের উদ্দেশ্য সমূহ তুলে ধরা হলো-
১. ব্যাংকের সুযোগ-সুবিধা গরীব ও দুঃস্থদের মধ্যে সম্প্রসারিত করা।
২. গ্রাম্য মহাজনদের শোষণ দুর করা।
৩. অব্যবহৃত ও আধা ব্যবহৃত মানব সম্পদের জন্য কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করা।
৪. চিরাচরিত “স্বল্প আয়-স্বল্প সঞ্চয়, স্বল্প বিনিয়োগ-স্বল্প আয়” এ দুষ্টচক্রকে ঘুরিয়ে “স্বল্প আয়-ঋণ/বিনিয়োগ, বেশি আয়-বেশি বিনিয়োগ” এ রূপান্তরিত করা।

Features of Grameen Bank (গ্রামীণ ব্যাংকের বৈশিষ্ট্য সমূহ)
নিম্নে গ্রামীণ ব্যাংকের বৈশিষ্ট্য সমূহ তুলে ধরা হলো-
১. গ্রামীণ ব্যাংকের টার্গেট গ্রুপ হলো গ্রামীণ দরিদ্র জনগোষ্ঠী।
২. গ্রামীণ ব্যাংক গরীব মহিলা ও পুরুষদের জন্য ব্যাংকিং সুবিধা প্রদান করে।
৩. গ্রামীণ ব্যাংক বেকার জনশক্তির কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করে।
৪. ঋণ প্রদানের পূর্বে ৫ জনকে নিয়ে গ্রুপ গঠন করে, মহিলাদের নিয়ে আলাদা গ্রুপ গঠন, প্রতি গ্রুপের জন্য একজন সভাপতি/সম্পাদক নিযুক্ত করে গ্রুপ পরিচালনা করে থাকে।
৫. মহিলা ও পুরুষদের জন্য পৃথক পৃথক কেন্দ্র।
৬. বয়স সীমা ১৮ থেকে ৫০ বছর।
৭. সদস্যগণকে সমমনা ও একই গ্রামের বাসিন্দা হতে হবে।
৮. গ্রুপ লিডার এবং ডেপুটি লিডার গ্রুপের সদস্যদের দ্বারা নির্বাচিত হবেন, দায়িত্বকাল এক বছর।
৯. প্রতি সপ্তাহে একটি করে সাপ্তাহিক সভা হয়ে থাকে।
১০. বাধ্যতামূলক সাপ্তাহিক সঞ্চয় ও কেন্দ্র তহবিল রয়েছে।
১১. আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের লক্ষ্যে গ্রুপ সদস্যদের সচেতনতা ও দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য প্রশিক্ষণের আয়োজন করে।
১২. জামানতবিহীন ঋণ প্রদান করে থাকে।
১৩. মহিলা ও পুরুষদের জন্য সর্বদা পৃথক কেন্দ্র ব্যবস্থাপনা।
১৪. শৃঙ্খলা ও দলগত একতার ভিত্তিতে কেন্দ্র পরিচালনা করা হয়।

Leave a Reply