একক ব্যাংকিং ও শাখা ব্যাংকিং এর মধ্যে পার্থক্য সমূহ

0

ব্যাংকিং নিউজ বাংলাদেশঃ মুনাফা অর্জনের উদ্দেশ্যে উভয়ই ব্যাংকিং ব্যবসায় নিয়োজিত আর্থিক মধ্যস্থতাকারী প্রতিষ্ঠান। কার্যগত দিক থেকে একক ব্যাংকিং ও শাখা ব্যাংকিং এর মধ্যে যথেষ্ট মিল রয়েছে। তবে উভয়ের প্রকৃতি গঠন পদ্ধতি কাঠামো ও পরিচালনাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে অনেক পার্থক্য রয়েছে। নিম্নে একক ব্যাংকিং ও শাখা ব্যাংকিং এর মধ্যে পার্থক্যসমূহ তুলে ধরা হলো-

১) Definition (সংজ্ঞা)
যে ব্যাংকিং ব্যবস্থায় কেবলমাত্র একটি অফিসের মাধ্যমে ব্যাংকিং কার্যাবলী পরিচালনা করা হয় তাকে একক ব্যাংকিং বলা হয়৷ একক ব্যাংকিং ব্যবস্থায় কোন শাখা থাকেনা৷
অন্যদিকে যে ব্যাংকিং ব্যবস্থায় একাধিক শাখার মাধ্যমে ব্যাংকিং কার্যাবলী পরিচালনা করা হয় তাকে শাখা ব্যাংকিং বলা হয়৷

২) Nature (প্রকৃতি)
একক ব্যাংক ক্ষুদ্রায়তন প্রকৃতির৷
অপরদিকে শাখা ব্যাংকিং বৃহদায়তন প্রকৃতির৷

৩) Origin (উৎপত্তি)
একক ব্যাংক এর উৎপত্তিস্থল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং সেখানে এর প্রচলন অধিকহারে পরিলক্ষিত হয়।
অন্যদিকে শাখা ব্যাংকের উৎপত্তি স্থল যুক্তরাজ্যে এবং সারা বিশ্বের প্রচলন রয়েছে৷

৪) Ownership (মালিকানা)
একক ব্যাংকিং একক মালিকানা অংশীদারি প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি হিসেবে গঠিত হয়ে থাকে৷
অপরদিকে শাখা ব্যাংক সাধারণত অধিকাংশ ক্ষেত্রে যৌথ মূলধনী কোম্পানি হিসেবে গঠিত হয়ে থাকে৷

৫) Legal entity (আইনগত সত্তা)
একক ব্যাংকিং এর আইনগত সত্তা দুর্বল৷
অন্যদিকে শাখা ব্যাংকের আইনগত সত্তা বেশ মজবুত ও শক্তিশালী৷

৬) Formation system (গঠন পদ্ধতি)
একক ব্যাংকের গঠন পদ্ধতি অপেক্ষাকৃত সহজ৷
অপরদিকে শাখা ব্যাংকের গঠন পদ্ধতি তুলনামূলকভাবে জটিল৷

৭) Scope (পরিধি)
একক ব্যাংক এর কার্য পরিধি একটি নির্দিষ্ট এলাকার মধ্যে সীমিত থাকে৷
অপরদিকে শাখা ব্যাংক এর কার্য পরিধি দেশে-বিদেশে বিস্তৃত৷

৮) Risk (ঝুঁকি)
একক ব্যাংকের ব্যবসায়িক ঝুঁকি শাখা ব্যাংক থেকে অনেক বেশি৷
অন্যদিকে শাখা ব্যাংকের ঝুঁকি একক ব্যাংক অপেক্ষা কম৷

৯) Money transfer (অর্থ স্থানান্তর)
একক ব্যাংকের কোন শাখা না থাকায় অর্থ স্থানান্তরে জটিলতা সৃষ্টি হয়৷
অপরপক্ষে শাখা ব্যাংকের বিভিন্ন অঞ্চলে শাখা থাকায় অর্থ স্থানান্তরে কোন জটিলতার সৃষ্টি হয় না৷

১০) Taking decision (সিদ্ধান্ত গ্রহণ)
একক ব্যাংকের ক্ষেত্রে দ্রুত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা যায়৷
অন্যদিকে শাখা ব্যাংকের ক্ষেত্রে দ্রুত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা যায় না৷

১১) Profit gain (মুনাফা অর্জন)
আয়তন ও মূলধনের সীমাবদ্ধতার কারণে একক ব্যাংকের মুনাফা কম হয়ে থাকে৷
অন্যদিকে বৃহদায়তন হিসেবে শাখা ব্যাংকের মুনাফার পরিমাণ অধিক হয়ে থাকে৷

১২) Liquidity (তারল্য)
একক ব্যাংকের তারল্য ক্ষমতা অনেক কম৷
অন্যদিকে শাখা ব্যাংকের তারল্য ক্ষমতা অনেক বেশি থাকে৷

১৩) Operation and control (পরিচালনা ও নিয়ন্ত্রণ)
একক ব্যাংক এর আয়তন সীমিত ও কেন্দ্রীভূত বিধায় এর পরিচালনা ও নিয়ন্ত্রণ সহজ হয়ে থাকে৷
অন্যদিকে কার্যক্রম দেশ ও দেশের বাইরেও বিস্তৃত বিধায় শাখা ব্যাংকিং এর পরিচালনা ও নিয়ন্ত্রণ অপেক্ষাকৃত জটিল৷

১৪) Overhead cost (উপরি ব্যয়)
একক ব্যাংক এর উপরি ব্যয় তুলনামূলকভাবে অনেক কম হয়ে থাকে৷
অন্যদিকে শাখা ব্যাংক বৃহদায়তন প্রকৃতির বিধায় এর উপরি ব্যয় বেশি হয়ে থাকে৷

১৫) Interest rate (সুদের হার)
একক ব্যাংক এলাকা ভিত্তিক হওয়ার কারণে এর সুদের হারের তারতম্য পরিলক্ষিত হয়৷
অন্যদিকে শাখা ব্যাংকের সুদের হারের কোন তারতম্য হয় না৷

১৬) Loan sanction (ঋণ মঞ্জুর)
একক ব্যাংকিং একটিমাত্র কার্যালয়ের মাধ্যমে পরিচালিত ও নিয়ন্ত্রিত হয় বিধায় ঋণ মঞ্জুর সহজতর হয়৷
অপরদিকে শাখা ব্যাংকের ক্ষেত্রে নানা আনুষ্ঠানিকতা পালন করতে হয় বিধায় ঋণ মঞ্জুর বেশ জটিল৷

১৭) Amount of capital (মূলধনের পরিমাণ)
একক ব্যাংক ক্ষুদ্রায়তন প্রতিষ্ঠান হওয়ায় এর মূলধনের পরিমাণ কম৷
অপরদিকে শাখা ব্যাংক বৃহদায়তন প্রতিষ্ঠান হওয়ায় এর মূলধনের পরিমাণ বেশি৷

১৮) Division of labour (শ্রম বিভাজন)
একক ব্যাংক এর ক্ষেত্রে শ্রম বিভাজন করা যায় না৷
অন্যদিকে শাখা ব্যাংকের ক্ষেত্রে শ্রম বিভাজন করা যায়৷

১৯) Employment (কর্মসংস্থান)
একক ব্যাংক এর কার্য পরিধি সীমিত বিধায় কর্মসংস্থানের সুযোগ কম৷
অন্যদিকে শাখা ব্যাংকের কর্ম পরিধি বিস্তৃত বিধায় কর্মসংস্থানের সুযোগ বেশি৷

২০) Foreign trade (বৈদেশিক বাণিজ্য)
একটি মাত্র শাখার মাধ্যমে যাবতীয় কার্যাবলী পরিচালিত হয় বিধায় বৈদেশিক বাণিজ্যের ভূমিকা রাখা সম্ভব হয় না৷
অন্যদিকে দেশের বিস্তৃত অঞ্চলের শাখা ব্যাংক বিস্তৃত বিধায় বৈদেশিক বাণিজ্যের ভূমিকা রাখতে পারে৷

২১) Role on economy (অর্থনীতিতে ভূমিকা)
একক ব্যাংকের সামগ্রিক অর্থনীতিতে ভূমিকা কম৷
অন্যদিকে শাখা ব্যাংকের সামগ্রিক অর্থনীতিতে ভূমিকা অনেক বেশি৷

২২) Relation with Central Bank (কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সাথে সম্পর্ক)
এ সকল ব্যাংকের পক্ষে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সাথে যোগাযোগ রক্ষা ও সম্পর্ক বজায় রেখে চলা সম্ভব হয় না৷
অন্যদিকে শাখা ব্যাংকের ক্ষেত্রে প্রধান কার্যালয়ের সাথে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের যোগাযোগ ও সম্পর্ক বজায় থাকে৷

২৩) Dissolution (বিলোপ সাধন)
একক ব্যাংকের বিলোপ সাধন সহজ৷
অপরপক্ষে শাখা ব্যাংকের বিলোপ সাধন জটিল৷

২৪) Job satisfaction (কর্ম সন্তুষ্টি)
আর্থিক সামর্থ্য কম থাকায় সুযোগ সুবিধা ও সীমিত থাকে ফলে কর্মীর পরিমাণ কম থাকে৷
অন্যদিকে আর্থিক সামর্থ্য বেশি থাকায় সুযোগ সুবিধা ও বেশি থাকে ফলে কর্মীর পরিমাণ বেশি থাকে৷

Leave a Reply