ক্রেডিট কার্ড বনাম ডেবিট কার্ড

0
1373

ব্যাংকিং নিউজ বাংলাদেশঃ ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করা উচিৎ নাকি ডেবিট কার্ড– এ তর্কের যেন কোন শেষ নেই। প্লাস্টিকের টুকরো দুটোর মাধ্যমে কেনাকাটা, লেনদেন এখন আমাদের জীবনের গুরুত্বপূর্ণ এবং অপরিহার্য অংশ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এগুলো আমাদের জীবন এখন এতোই সহজ এবং ঝামেলাহীন করে ফেলেছে যে বাড়ি থেকে বের হবার সময় মানিব্যাগে নগদ অর্থের চেয়ে ক্রেডিট বা ডেবিট কার্ড থাকলেই বেশী স্বস্তি বোধ করি।

কিন্তু কথা হচ্ছে কেনাকাটা করতে গিয়ে ক্রেডিট কার্ড নাকি ডেবিট কার্ড– কোনটা ব্যবহার করা ভালো? কখনও পার্থক্যটা কি ভেবে দেখেছেন? যারা ক্রেডিট কার্ড এবং ডেবিট কার্ড দু’টিই ব্যবহার করছেন তাদের মধ্যে একটা দ্বিধা থেকেই যায়, ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করবো! নাকি ডেবিট কার্ড ব্যবহার করবো! আমি বলবো ক্ষেত্র বিশেষে আপনি দু’টিই ব্যবহার করুন যখন যেটা প্রয়োজন! আমার এ’কথার পরও প্রশ্ন থেকেই যায়, যুক্তি কি? কোন কার্ড ব্যবহার করার পক্ষে যুক্তি বেশি? এটা আসলে আপনার ব্যক্তিগত ইচ্ছার উপর নির্ভর করে; তারপরও আপনার জন্য কোন কার্ড ব্যবহারের যুক্তির পাল্লা বেশি তা আজ একটু জেনে নিন, ঝালাই করে নিন। আর যারা ক্রেডিট কার্ড অথবা ডেবিট কার্ড ব্যবহার করছেন না অথবা যেকোন একটি ব্যবহার করছেন তারা জেনে নিন কার্ড দু’টির পার্থক্য এবং বেছে নিন নিজের সুবিধামত কার্ড-

প্রথমতঃ
আপনার মনে হতেই পারে ক্রেডিট কার্ড এবং ডেবিট কার্ড একই জিনিস! এটুকু জেনে রাখুন, এরা দেখতে প্রায় একই রকম, দু’টিরই ১৬ ডিজিটের পিন নাম্বার আছে, এবং দু’টিরই মেয়াদোত্তীর্ণের তারিখ রয়েছে, তবে এরা সম্পূর্ণ ভিন্নভাবে কাজ করে। ডেবিট কার্ডের মাধ্যমে আপনি আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে আপনার নিজের টাকা উইথড্র করতে পারবেন, এটি অনেকটা ডিজিটাল চেকবুকের মত। আর ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে আপনি আসলে ব্যাংকের কাছ থেকে টাকা ধার করে যেকোন পণ্য কিনতে পারবেন।

দ্বিতীয়তঃ
অনেকেই ক্রেডিট কার্ডের তুলনায় ডেবিট কার্ড বেশি ব্যবহার করতে চায় কারণ ডেবিট কার্ডে কোন অ্যানুয়াল ফি দিতে হয় না অথবা দিতে হলেও খুব অল্প পরিমানে। আর ক্রেডিট কার্ডে একটি নির্দিষ্ট পরিমানে অ্যানুয়াল ফি দিতে হয়। তবে মনে রাখবেন, এই অ্যানুয়াল ফি’র বিনিময়ে আপনি কিন্তু সুবিধা পাচ্ছেন অনেক যেটা আপনি ডেবিট কার্ডে পাবেন না।

তৃতীয়তঃ
ডেবিট কার্ড ব্যবহার করলে আপনার যা টাকা আছে আপনি তা-ই ব্যবহার করতে পারবেন, এক্ষেত্রে আপনাকে বাড়তি কোন সুদ বা লোনের ঝামেলায় যেতে হবে না। আর ক্রেডিট কার্ড এর ক্ষেত্রে আপনাকে আসলে ব্যাংকের কাছ থেকে লোন করতে হবে। তবে এক্ষেত্রে মনে রাখবেন যদি আপনি ক্রেডিট কার্ডের বিল দেয়ার ক্ষমতা রাখেন তবে এই লোন আসলে আপনার জন্য কোন সমস্যা নয়। আর আপনি সময়মত ক্রেডিট লোন পরিশোধ করলে কোন ধরনের বাড়তি ইন্টারেস্ট রেটও আপনাকে গুণতে হবে না।

চতুর্থতঃ
এটা সত্যি ডেবিট কার্ড ব্যবহার করলে আপনি আপনার খরচের রাশটা টেনে ধরতে পারবেন। আপনার যা সীমিত পরিমানে আছে আপনি তা-ই ব্যবহার করবেন। এতে সঞ্চয়ের তাগিদটাও থাকে। কিন্তু ক্রেডিট কার্ডে আসলে আপনাকে আলাদা করে ক্রেডিট লিস্ট মাথায় রাখতে হবে। তবে এক্ষেত্রে মনে রাখবেন ক্রেডিট কার্ডে ব্যবহার কিন্তু আপনার ক্রেডিট স্কোরও বাড়াবে। আর তাছাড়া আপনি ক্রেডিট কার্ডের ক্ষেত্রেও আপনার খরচের রাশটা ধরে রাখতে পারেন ক্রেডিট লিমিট আপনার নাগালের মধ্যে রাখার মাধ্যমে।

পঞ্চমতঃ
ডেবিট কার্ডের ব্যবহারে আপনি বাড়তি সুবিধাগুলো পাচ্ছেন না যেটা আপনি ক্রেডিট কার্ডের ব্যবহারে পাবেন। যেমনঃ রিওয়ার্ড পয়েন্ট, ক্যাশব্যাক, ডিসকাউন্ট।

ষষ্ঠতঃ
ক্রেডিট কার্ড আপনাকে বাড়তি কিছু নিরাপত্তা দেবে যেমন পণ্যের উপর বিভিন্ন ধরনের ইন্স্যুরেন্স সুবিধা, হেলথ ইন্স্যুরেন্স সুবিধা, অতিরিক্ত ওয়ারেন্টি পাওয়ার সুবিধা সহ আরো অনেক কিছু যেটি আপনি আসলে ডেবিট কার্ডের ব্যবহারে পাবেন না।

সর্বশেষ, যেটি আবার না বললেই নয়! আপনি ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করবেন নাকি ডেবিট কার্ড ব্যবহার করবেন নাকি দু’টিই সমানতালে ব্যবহার করবেন সেটি সম্পূর্ণ আপনার ব্যক্তিগত সিদ্ধান্ত। তবে আমি বলবো যেকোন কিছু ব্যবহারের আগে জেনে বুঝে ঝালাই করে মিলিয়ে নিন একটু। এতে হয়ত প্রথমদিকে সময় দিতে হবে কিন্তু সবকিছুর শেষে আপনার লাভই হবে, ক্ষতি হবে না একটুও।

Leave a Reply