শেয়ার বাজার

চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ লিমিটেড (সিএসই)

দেশের দ্বিতীয় স্টক এক্সচেঞ্জ হলো চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ লিমিটেড (সিএসই)। ১৯৯৫ সালের ১০ অক্টোবর চট্টগ্রামের আগ্রাবাদে প্রতিষ্ঠিত হয় চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ। একই বছরের ৪ নভেম্বর দেশের দ্বিতীয় এই স্টক এক্সচেঞ্জটি আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেন তৎকালীন বাংলাদেশের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী। প্রতিষ্ঠার প্রথম দিন থেকেই আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে ১২ বোর্ড সদস্য নিয়ে গঠিত কমিটি প্রতিষ্ঠানটিতে স্বাধীন সচিবালয়ের কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে।

১৯৯৫ সালের ১০ই অক্টোবর হতে এ প্রতিষ্ঠানটি ঢাকা এক্সচেঞ্জের ন্যায় কোম্পানি আইনের আওতায় অলাভজনক সংস্থা হিসেবে নিবন্ধিত হয়ে (নিবন্ধক তারিখ: ১.৪.১৯৯৫) ট্রেডিং শুরু করে। শুরুতে এর তালিকাভুক্ত সিকিউরিটিজের সংখ্যা ছিল ৩০টি এবং পরিশোধিত শেয়ার মুলধন ও ডিবেঞ্চারসহ এর মোট মুলধনের পরিমাণ ছিল ২১৫.৪ কোটি টাকা। এটি ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের মতো ১৮ সদস্য বিশিষ্ট বোর্ড দ্বারা পরিচালিত হয়। এর উদ্দেশ্য, নীতি ও কার্যাবলি ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের অনুরূপ।

সিএসই সিকিউরিটি অ্যাক্ট ১৯২০, সিকিউরিটি অর্ডিন্যান্স ১৯৬৯, সিকিউরিটি ও এক্সচেঞ্জ কমিশন আইন ১৯৯৩ এবং এর নিজস্ব আইনকানুন যথা সিএসই স্বয়ংক্রিয় লেনদেন রেগুলেশন ১৯৯৯ চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ ইনভেস্টরস প্রোটেকশন ফান্ড রেগুলেশন ১৯৯৯, মার্জিন রুলস ১৯৯৯, এবং স্টক এক্সচেঞ্জ লেনদেন নিষ্পত্তি বিধান ১৯৯৮ দ্বারা পরিচালিত। সিএসই-এর লেনদেন কার্যক্রমসমূহ ১৯৯৮ সালের জুন মাস থেকে সম্পূর্ণ স্বয়ংক্রিয়ভাবে পরিচালিত হয়ে আসছে। সূচনালগ্নে সিএসই তালিকাভুক্ত সিকিউরিটিজের সংখ্যা ছিল ৩০টি (২৩টি কোম্পানি ও ৭টি মিউচুয়্যাল ফান্ড), যা ৩১ ডিসেম্বর ২০০৯ শেষে ২৪৩টিতে (২২৫টি কোম্পানি, ১৭টি মিউচুয়্যাল ফান্ড ও ১টি ডিবেঞ্চার) উন্নীত হয়।

চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে তালিকাভুক্ত সকল সিকিউরিটিজের পরিশোধিত মূলধনের পরিমাণ ৩১ ডিসেম্বর ২০০৯ শেষে ১৩০৪২০ মিলিয়ন টাকায় দাঁড়ায়। সিএসই’র সকল সিকিউরিটিজের মোট বাজার মূলধনের পরিমাণ ৩১ ডিসেম্বর ২০০৯ শেষে ৭১৭৯৩৩ মিলিয়ন টাকায় দাঁড়ায়। ২০০৯ সালের ডিসেম্বর শেষে তিনটি সিএসই সূচক, সিএএসপিআই সিএসই সার্বিক শেয়ার মূল্যসূচক, সিএসই-৩০ সূচক এবং সিএসসিএক্স সূচক ডিসেম্বর ২০০৮-এর তুলনায় যথাক্রমে ১২.৮ শতাংশ, ২৩.৫ শতাংশ এবং ১৪.০ শতাংশ হ্রাস পায়।

ব্যাংক, ব্যাংকার, ব্যাংকিং, অর্থনীতি ও ফাইন্যান্স বিষয়ক গুরুত্বপূর্ণ খবর, প্রতিবেদন, বিশেষ কলাম, বিনিয়োগ/ লোন, ডেবিট কার্ড, ক্রেডিট কার্ড, ফিনটেক, ব্যাংকের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ও বাংলাদেশ ব্যাংকের সার্কুলারগুলোর আপডেট পেতে আমাদের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ 'ব্যাংকিং নিউজ', ফেসবুক গ্রুপ 'ব্যাংকিং ইনফরমেশন', 'লিংকডইন', 'টেলিগ্রাম চ্যানেল', 'ইন্সটাগ্রাম', 'টুইটার', 'ইউটিউব', 'হোয়াটসঅ্যাপ চ্যানেল' এবং 'গুগল নিউজ'-এ যুক্ত হয়ে সাথে থাকুন।

২০১৫ সালের ২৬ শে ফেব্রুয়ারি তারিখে এর তালিকাভুক্ত সিকিউরিটিজ এর সংখ্যা ছিল ২৮৯ এবং বাজার মূলধনের পরিমাণ ছিল ২৫৭১৪৬.৪০ কোটি টাকা। বর্তমানে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ এর কোম্পানির সংখ্যা হলো ২৯৬টি। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের মতো এটিতেও তিনটি সূচক ব্যবহার হয়। যেমন-
ক. সিএসই সকল শেয়ারমূল্য সূচক
খ. সিএসইএক্স সূচক ও
গ. সিএসই ৩০ সূচক।

যোগাযোগের ঠিকানাঃ
হেড অফিস
চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ লিমিটেড
সিএসই বিল্ডিং, ১০৮০, এসকে মুজিব রোড আগ্রাবাদ
চট্টগ্রাম, বাংলাদেশ।
টেলিফোন: +৮৮(০) ৩১-৭১৪৬৩২-৩, +৮৮(০) ৩১-৭২০৮৭১-৩
ফ্যাক্স: +৮৮(০) ৩১-৭১৪১০১
ই-মেইল: info@cse.com.bd
ওয়েবসাইট: www.cse.com.bd

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

রিলেটেড লেখা

Back to top button