কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ঋণ নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি

0
709

ব্যাংকিং নিউজ বাংলাদেশঃ কেন্দ্রীয় ব্যাংক কর্তৃক বাণিজ্যিক ব্যাংকের ঋণ সৃষ্টির ক্ষমতাকে ঋণ নিয়ন্ত্রণ বোঝায়। অর্থাৎ এটি এমন এক কৌশল, যা প্রয়োগ করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক অর্থনীতিতে ঋণের পরিমাণ কাম্য পর্যায় সীমিত রাখে। এ ঋণ নিয়ন্ত্রণ করার ক্ষমতা কেন্দ্রীয় ব্যাংকের একার।

Purpose of the central bank credit control (কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ঋণ নিয়ন্ত্রণের উদ্দেশ্য)
দেশের অর্থনীতিকে সচল রাখা এবং এর উদ্দেশ্যাবলি সাফল্যমন্ডিত করার জন্য ঋণ নিয়ন্ত্রণ দরকার হয়। বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর ঋণদান কার্যক্রম একটা নির্দিষ্ট গণ্ডির মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখা কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অন্যতম দায়িত্ব। ঋণ নির্ধারিত সীমার মধ্যে না থাকলে দেশে ঋণের অনাবশ্যক হ্রাস-বৃদ্ধিতে পণ্যের মূল্যস্তরেও অপ্রয়োজনীয় এবং অস্বাভাবিক হ্রাস-বৃদ্ধি ঘটতে পারে। নিম্নোক্ত উদ্দেশ্যে সাধারণত ঋণ নিয়ন্ত্রণ করা হয়-
১) বিনিময় হারে স্থিতিশীলতা আনয়ন;
২) দ্রব্যমূল্যের স্থিতিশীলতা সাধারণ মানুষের অনুকূলে রাখা;
৩) কর্মসংস্থানের সুযোগ দান ও দেশের অর্থনৈতিক অবস্থার উন্নয়ন;
৪) জীবনধারণের মানোন্নয়ন; ও
৫) মুদ্রাস্ফীতি রোধ করা।

Way to credit control of central bank (কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ঋণ নিয়ন্ত্রণের উপায়)
কেন্দ্রীয় ব্যাংক ঋণ নিয়ন্ত্রণের জন্য বিভিন্ন ব্যবস্থা গ্রহণ করে থাকে। এগুলো নিম্নে তুলে ধরা হলো-

১) পরিমাণগত বা সাধারণ ঋণ নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি
ক) ব্যাংক হারের পরিবর্তন;
খ) খোলা বাজার নীতি; ও
গ) রিজার্ভ অনুপাতের হ্রাস বৃদ্ধি।

২) গুণগত বা বিচার মূলক পদ্ধতি
ক) প্রত্যক্ষ ব্যবস্থা গ্রহণ;
খ) নৈতিক চাপ ও প্রচার;
গ) বিনিময় নিয়ন্ত্রণ; ও
ঘ) বাছাই করা ঋণ নিয়ন্ত্রণ।

ব্যাংক হার বাড়ালে যা ঘটবে
• সুদের হার বাড়বে
• ঋণের প্রবাহ কমবে
• সঞ্চয়ের হার বাড়বে
• জনগণের ক্রয় ক্ষমতা কমবে
• দ্রব্য মূল্যস্তর কমবে
• আমদানি কমবে ও
• রপ্তানি বাড়বে।

ব্যাংক হার কমালে যা ঘটবে
• সুদের হার কমবে
• ঋণের প্রবাহ বাড়বে
• সঞ্চয়ের হার কমবে
• জনগণের ক্রয় ক্ষমতা বাড়বে
• দ্রব্য মূল্যস্তর বাড়বে
• আমদানি বাড়বে ও
• রপ্তানি কমবে।

Leave a Reply