ব্যাংক কর্মকর্তাদের বিদেশ ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা

0
989

রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন ব্যাংকগুলোর কর্মকর্তাদের ঘন ঘন বিদেশ ভ্রমণের উপর বিধি নিষেধ আরোপ করেছে সরকার। তাদের অতিমাত্রায় বিদেশ ভ্রমণে তীব্র অসন্তোষ প্রকাশ করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়। এখন থেকে শুধু অতীব জরুরি প্রয়োজন এবং চিকিৎসা ব্যতীত অন্যান্য ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। এই নিষেধাজ্ঞা আগামী ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি মাস পর্যন্ত বলবৎ থাকবে।

নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা এই ব্যাংকগুলোর তালিকায় রয়েছে- রাষ্ট্রীয় সোনালী ব্যাংক, জনতা ব্যাংক, অগ্রণী ব্যাংক, রূপালী ব্যাংক, কৃষি ব্যাংক, বিডিবিএল, কর্মসংস্থান ব্যাংক, আনসার-ভিডিবি উন্নয়ন ব্যাংক, প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক, পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক এবং রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক। সম্প্রতি অর্থমন্ত্রণলয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ থেকে জারি করা এক আদেশে একথা বলা হয়েছে।

রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন এবং বিশেষায়িত ব্যাংকসমূহের কর্মকর্তাগণের ব্যক্তিগত উদ্দেশ্যে ‘বিদেশ ভ্রমণ সীমিতকরণ’ শীর্ষক আদেশে খেলাপি ঋণ আদায়ে অগ্রগতি না হওয়ার প্রসঙ্গও উল্লেখ করা হয়েছে। আদেশে বলা হয়েছে, “রাষ্ট্র মালিকানাধীন এবং বিশেষায়িত ব্যাংকের খেলাপি ঋণ হ্রাসকল্পে আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ এবং বাংলাদেশ ব্যাংক বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করা সত্ত্বেও ঋণ আদায়ে কোনো উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি পরিলক্ষিত হচ্ছে না।

বর্তমানে বাংলাদেশ ব্যাংকের ঋণ পুনঃতফসিল ও এককালীন এক্সিট সংক্রান্ত বিশেষ নীতিমালার (২ শতাংশ হারে ডাউন পেমেন্ট) আওতায় খেলাপি ঋণ আদায় কার্যক্রম চলমান রয়েছে, যার মেয়াদ হাইকোর্ট কর্তৃক ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সাল পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হয়েছে। ফলে, খেলাপি ঋণ আদায় জোরদারকরণে ব্যাংক কর্মকর্তাদের যথাযথভাবে সম্পৃক্তকরণের লক্ষ্যে বিশেষ কার্যক্রম গ্রহণ করা প্রয়োজন।”

ব্যাংক কর্মকর্তাদের অতিরিক্ত বিদেশ ভ্রমণ প্রসঙ্গ টেনে আদেশে উল্লেখ করা হয়, “ব্যাংক কর্মকর্তাদের অতিমাত্রায় ব্যক্তিগত বিদেশ ভ্রমণ প্রতিষ্ঠানের দাপ্তরিক কার্যক্রমে ধীর গতিসহ ঋণ আদায়ে সরকার নির্ধারিত কাঙ্খিত লক্ষ্যমাত্রা অর্জন ব্যাহত হচ্ছে। তাই কর্মকর্তাদের মাধ্যমে যথাযথভাবে কার্যসম্পাদনের লক্ষ্যে ব্যক্তিগত পর্যায়ে অপরিহার্য প্রয়োজন ব্যতীত বিদেশ ভ্রমণ সীমিতকরণ আবশ্যক।

এমতাবস্থায়, খেলাপি ঋণ আদায়সহ ব্যাংকের সার্বিক কার্যক্রমে গতিশীলতা আনয়নের লক্ষ্যে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ পর্যন্ত ব্যাংক কর্মকর্তাদের অতীব জরুরি প্রয়োজন এবং চিকিৎসা ব্যতীত ব্যক্তিগত উদ্দেশ্য বিদেশ ভ্রমণ সীমিতকরণের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য নির্দেশ দেয়া হলো।

Leave a Reply