ডাক্তারদের পিপিই পড়ে ভাইরাল হওয়া ব্যাংক ম্যানেজারের বক্তব্য

0
8245

ডাক্তারদের পিপিই পড়ে ভাইরাল হওয়া জনতা ব্যাংক বাতাকান্দি শাখার ব্যবস্থাপক জনাব মোহাম্মদ জসীম উদ্দীন দাউদকান্দি উপজেলার কাউয়াদি গ্রামের বাসিন্দা।

আজ বৃহস্পতিবার ২৬ মার্চ, ২০২০ বিকেলে জনতা ব্যাংক বাতাকান্দি শাখার ব্যবস্থাপক জনাব মোহাম্মদ জসীম উদ্দীন তার নিজ ইউনিয়ন দৌলতপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মঈন চৌধুরীকে সাথে নিয়ে প্রায় দুইশত পরিবারের মাঝে হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ করেন।

ছবিঃ ভাইরাল হওয়া ব্যাংক ম্যানেজার

এছাড়া তিনি হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা ২৩ জনের খোজঁ খবর নেন। এখানে উল্লেখ্য যে, গত সপ্তাহে সদ্য বিদেশ ফেরৎ ২৩ জনকে এই জনাব মোহাম্মদ জসীম উদ্দীনের একান্ত প্রচেষ্টায় হোম কোয়ারেন্টাইনে বাধ্য করা হয়ে ছিলো।

করোনাঃ জনতা ব্যাংক বাতাকান্দি শাখায় সংক্রামন রোধে অনুকরণীয় উদ্যোগ এই শিরোনামে গত মঙ্গলবার ২৪ মার্চ, ২০২০ তারিখে ব্যাংকিং নিউজ বাংলাদেশে একটি নিউজ প্রকাশিত হয়। এতে দেখা যায়, প্রত্যেক ব্যাংক কর্মকর্তা-কর্মচারী সাদা এ্যাপ্রোন, হ্যান্ড গ্লাভস, মাস্ক পরে নির্দিধায় সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। কয়েকজন গ্রাহকের সাথে কথা বলে জানা গেছে, ব্যবস্থাপকের এই পদক্ষেপের কারনে তারা এই শাখায় নিশ্চিন্তে সেবা নিতে পারছে। পাশাপাশি তারা সচেতনও হচ্ছে।

পরবর্তীতে সোশ্যাল মিডিয়ায় এটি ভাইরাল হয় এবং বিভিন্ন দিক থেকে ম্যানেজার সাহেবকে হেয় প্রতিপন্ন করা হয়। যা আসলে বোঝার ভূল। নিঃসন্দেহে এটি একটি মহৎ উদ্যোগ।

জনাব মোহাম্মদ জসীম উদ্দীনের সাথে কথা বলে জানা গেছে, ভাইরাল হওয়া ছবিটিতে যে পিপিই দেখা গেছে, এটি আসলে স্থানীয়ভাবে নিজেদের তৈরি করা এ্যাপ্রোন। এটি ডাক্তারদের পিপিই নয়। করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে শাখার কর্মকর্তা এবং গ্রাহকদের সুরক্ষায় তিনি নানা রকম পদক্ষেপ নিয়েছেন।

তিনি আরো জানান, এই সময়ে ডাক্তাররাই জাতির প্রধান সৈনিক। সবার আগে সরকারের উচিত তাদের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা।

তবে দেশের এই দুর্দিনে ডাক্তার, প্রশাসন এবং আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর পাশাপাশি আমরাও জনগণকে সেবা দিয়ে যাব। আমাদেরও নিরাপত্তার দরকার আছে। কে সুস্থ আর কে অসুস্থ সেটা বিবেচনা করে ব্যাংকিং করা যায় না।

Leave a Reply