ব্যাংক লোন বা বিনিয়োগ শ্রেণীকরণ ও প্রভিশনিং পর্ব-৪

0
3961

ব্যাংকের ঋণ বা বিনিয়োগ হলো ব্যাংকের অন্যতম একটি বিষয়। কেননা ব্যাংকের লাভ বা মুনাফা নির্ভর করে ঋণ বা বিনিয়োগের উপর। ব্যাংকসমূহ কর্তৃক প্রদত্ত বিনিয়োগ বা ঋণের কতিপয় অংশ অনেক সময় খেলাপি থেকে যায়। আর এই খেলাপি বা মেয়াদোত্তীর্ণ বা অনাদায়ী বিনিয়োগ বা ঋণকে তার সময়সীমা অনুযায়ী বাংলাদেশ ব্যাংক বিভিন্ন ভাগে ভাগ করেছে। Loan/Investment Classification ব্যাংকারদের জন্য অতি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। যা ধারাবাহিকভাবে ৬ পর্বে প্রকাশিত হচ্ছে। আজ Loan/Investment Classification এর ৪র্থ পর্ব প্রকাশ করা হলো। আশা করছি সকলের কাজে লাগবে।

• Calculation of Defaulted Loan/Investment বা ডিফল্ট বিনিয়োগ/ঋণের হিসাব
শর্ট-টার্ম এগ্রিকালচারাল এবং মাইক্রো ক্রেডিট ব্যতীত “স্পেশাল ম্যানশন একাউন্ট” এবং “সাব-স্ট্যান্ডার্ড” বিনিয়োগ/ঋণকে ২৭ ক(৩) এর উদ্দেশ্যে ডিফল্ট বিনিয়োগ/ঋণ হিসাবে গণ্য করা হবে না [সেকশন ৫(গ)] ব্যাংকিং কোম্পানি আইন, ১৯৯১ অনুযায়ী। তবে, স্থায়ী মেয়াদি বিনিয়োগ/ঋণের পরিমাণ “সাব-স্ট্যান্ডার্ড” বিভাগে সর্বোচ্চ ১০ লক্ষ টাকা একই উদ্দেশ্যে ডিফল্ট বিনিয়োগ/ঋণ হিসাবে গণ্য হবে।

ডিফল্ট বিনিয়োগ/ঋণ হিসাবে নিম্নে উল্লিখিত হিসাবে গণনা করা হবে: (BRPD সার্কুলার # ৮ অনুসারে, তারিখ ০২.০৮.২০১৪)
১) চলমান বিনিয়োগ/ঋণ (Continuous Loan/Investment) এর ক্ষেত্রেঃ Defaulted loan =DF+BL
২) তলবী বিনিয়োগ/ঋণ (Demand Loan/Investment) এর ক্ষেত্রেঃ Defaulted loan = DF+BL
৩) ফিক্সড টার্ম বিনিয়োগ/লোন (Fixed Term Loan/Investment- ১০ লক্ষ টাকার উপরে) এর ক্ষেত্রেঃ Defaulted loan =DF+BL
৪) ফিক্সড টার্ম লোন (Fixed Term Loan/Investment- ১০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত) এর ক্ষেত্রেঃ Defaulted loan=SS+DF+BL
৫) স্বল্প মেয়াদি কৃষি বিনিয়োগ/ঋণ ও মাইক্রো ক্রেডিট (STAC & MC) এর ক্ষেত্রেঃ Defaulted loan =SS+DF+BL

(B) Qualitative Judgment বা গুণগত মান
– বিনিয়োগ/ঋণের বর্ধিতকরণের শর্তাবলী অনুসারে শর্তগুলোর কোনও পরিবর্তন ঘটে থাকে।
– যদি প্রতিকূল অবস্থার কারণে বিনিয়োগ/ঋণগ্রহীতার মূলধন ব্যাহত হয়।
– সিকিউরিটিজ এর মূল্য হ্রাস হলে।
– বিনিয়োগ/ঋণের পুনরুদ্ধার অন্য কোন অপ্রতিরোধ্য পরিস্থিতির কারণে অনিশ্চিত হয়ে পড়লে, বিনিয়োগ/ঋণের গুণগত বিচারের ভিত্তিতে শ্রেণীভুক্ত করা হবে।
– পাশাপাশি, যদি কোনো বিনিয়োগ/ঋণ অযৌক্তিক বা বারবার রি-শিডিউল হয় বা পুনরায় সময়সূচির নিয়ম লঙ্ঘন করা হয়।
– প্রায়ই বিনিয়োগ/ঋণের সীমা অতিক্রমের ঘটনাগুলো লক্ষ্য করা যায়।
– বিনিয়োগ/ঋণের পুনরুদ্ধারের জন্য আইনি ব্যবস্থা দায়ের করা হয়।
– যদি সঠিক কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়াই বিনিয়োগ/ঋণ বাড়ানো হয়; তাহলে এটি গুণগত রায়ের ভিত্তিতে শ্রেণীবদ্ধ করা হবে।

লেখকঃ মোহাম্মদ শামসুদ্দীন আকন্দ, ব্যাংকার।

Leave a Reply