বাংলাদেশ সরকার ওয়েজ আর্নার ডেভেলপমেন্ট বন্ড

0
844

ব্যাংকিং নিউজ বাংলাদেশঃ বাংলাদেশী Wage Earner কর্তৃক প্রেরিত বৈদেশিক মুদ্রার সমমূল্য বাংলাদেশী টাকায় বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক স্বীকৃত এক প্রকার সঞ্চয় Bond।

• Wage Earner Development Bond যারা ক্রয় করতে পারবেন
ওয়েজ আর্নার (প্রবাসী বাংলাদেশী এবং বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত অনিবাসী নাগরিক) নিজ নামে, আবেদনে তার কর্তৃক উল্লেখিত ব্যক্তির নামে অথবা বাংলাদেশে তার Beneficiary এর নামে, বিদেশে লিয়েনে কর্মরত বাংলাদেশী সরকারি, সংবিধিবদ্ধ সংস্থা, স্বায়ত্তশাসিত ও আধা-স্বায়ত্তশাসিত সংস্থার কর্মকর্তা ও কর্মচারী (দেশে ফেরার এক বছরের মধ্যে) বিদেশে বাংলাদেশি দূতাবাসে কর্মরত বাংলাদেশ সরকারের কর্মকর্তা ও কর্মচারী।

• Wage Earner Development Bond এর স্ক্রিপের মূল্যমান
– ২৫,০০০ টাকা, ৫০,০০০ টাকা, ১,০০,০০০ টাকা, ২,০০,০০০ টাকা, ৫,০০,০০০ টাকা এবং ১০,০০,০০০ টাকা।
– Wage Earner Development Bond এর মেয়াদ ৫ (পাঁচ) বছর।

• Wage Earner Development Bond এর মুনাফার হার
– Wage Earner Development Bond এর মুনাফার হার মেয়াদান্তে ১২% (চক্রবৃদ্ধি হারে)।
– Wage Earner Development Bond মেয়াদপূর্তির পূর্বে নগদায়ন করলে
– ছয় মাসের পূর্বে – কোন মুনাফা নেই।
– ছয় মাস পূর্তিতে কিন্তু এক বছরের পূর্বে – ৮.৭% (ছয় মাসের জন্য)।
– এক বছর পূর্তিতে কিন্তু দেড় বছরের পূর্বে – ৯.৪৫% (এক বছরের জন্য)।
– দেড় বছর পূর্তিতে কিন্তু দুই বছরের পূর্বে – ১০.২০% ( দেড় বছরের জন্য)।
– দুই বছর পূর্তির পর কিন্তু পাঁচ বছরের পূর্বে – ১১.২০% (সাড়ে চার বছরের জন্য)।

• Wage Earner Development Bond এর বিশেষ সুবিধা সমুহ
নিম্নে Wage Earner Development Bond এর বিশেষ সুবিধা সমূহ তুলে ধরা হলো-
– বিদেশস্থ বাংলাদেশ দূতাবাস কর্তৃক সত্যায়ন ছাড়া প্রবাসী বাংলাদেশীগণ কেবল তাদের পাসপোর্ট এর কপি প্রদান করে এবং বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত নাগরিকগণ No VISA Required সিল সম্বলিত পাসপোর্ট এর কপি প্রদান করে বন্ড ক্রয় করতে পারবেন।
– বন্ড ক্রয়ের কোন নির্দিষ্ট সীমা নেই।
– নমিনি নিয়োগ এবং প্রয়োজনে নমিনি পরিবর্তন করা যায়।
– মেয়াদ শেষে মূল অর্থ পুনঃবিনিয়োগ এর সুবিধা।
– বন্ড জামানত রেখে দেশের যেকোন তফসিলি ব্যাংক থেকে ঋণ গ্রহণের সুবিধা।
– ৮ কোটি টাকা বা তদূর্ধ্ব অংকের বিনিয়োগকারীগণ Commercially Important Person (CIP) এর মর্যাদা এবং CIP দের জন্য প্রযোজ্য সুযোগ-সুবিধা প্রাপ্য হবেন।
– বিনিয়োগকৃত অর্থের উপর ৪০% থেকে ৫০% পর্যন্ত (সর্বোচ্চ ৫ লাখ টাকা) মৃত্যু-ঝুঁকি সুবিধা।
– বন্ড হারিয়ে বা পুড়ে গেলে পত্রিকায় বিজ্ঞাপন না দিয়ে কেবল থানায় জিডি করে ডুপ্লিকেট বন্ডের জন্য আবেদন করা যায়।
– আবেদন করার ২ মাস পর Duplicate Bond ইস্যুকরণ।
– মেয়াদপূর্তিতে মূল অর্থ বৈদেশিক মুদ্রায় বিদেশে প্রত্যাবাসন (Repatriate) করা যায়। ও
– বিনিয়োগের মূল অর্থ ও অর্জিত মুনাফা আয়কর মুক্ত।

• Wage Earner Development Bond কোথায় পাওয়া যায়
বাংলাদেশের সকল তফসিলি ব্যাংকের এডি শাখা, বাংলাদেশী ব্যাংকসমূহের বৈদেশিক শাখা এবং বিদেশে কার্যরত বাংলাদেশী ব্যাংকসমূহের আওতাধীন Exchange company/Exchange House এ বাংলাদেশ সরকার ওয়েজ আর্নার ডেভেলপমেন্ট বন্ড (Wage Earner Development Bond) পাওয়া যায়।

সূত্রঃ বাংলাদেশ ব্যাংক

Leave a Reply