বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য প্রযুক্তি

0
731

বাংলাদেশ ব্যাংক ১৯৮০ সালে আইবিএম ৩৭০ মেইন ফ্রেম কম্পিউটারের মাধ্যমে তথ্য ও যােগাযােগ প্রযুক্তির যাত্রা শুরু করে এবং একই সাথে ইন-হাউজ সফটওয়্যার উন্নয়ন শুরু করে। তখন থেকেই বাংলাদেশ ব্যাংক তার নিজস্ব অটোমেশনের সাথে সাথে বিভিন্ন সরকারি অফিস ও ব্যাংক যেমন- প্রেসিডেন্ট সচিবালয়, জাতীয় রাজস্ব বাের্ড, সােনালী ব্যাংক, অগ্রণী ব্যাংক, জনতা ব্যাংক, রূপালী ব্যাংক, হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স করপােরেশন ইত্যাদি প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম অটোমেশনে সহায়তা দিয়ে আসছে।

বাংলাদেশ ব্যাংক নীতি, অপারেশন, প্রুডেন্সিয়াল সুপারভিশন, এন্টারপ্রাইজ রিসাের্সেস ম্যানেজমেন্ট ও যােগাযােগ ক্ষেত্রের বিভিন্ন কার্যক্রমের অটোমেশন সুসম্পন্ন করেছে। এগুলাে প্রধানত আমদানি, রপ্তানি, অগ্রিম, ডিপােজিট ডাটা প্রক্রিয়াকরণ, দেশী-বিদেশী কারেন্সী ক্লিয়ারিং সিস্টেম, ট্রেজারী ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম, ইম্পাের্ট মনিটরিং, এক্সপাের্ট ফরম ম্যাচিং, ক্রেডিট ইনফরমেশন ব্যুরাে, ক্যামেলস (CAMELS) রেটিং, ব্যাংকিং ইন্সপেকশন সিস্টেম, পেরােল, হিউম্যান রিসাের্সেস ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম, বাংলাদেশ ব্যাংক ওয়েবসাইট ইত্যাদি। এ পর্যন্ত ষাট (৬০)টি বিভিন্ন এপ্লিকেশন ইন-হাউজ এ তৈরি করা হয়েছে এবং এগুলাে অপারেশনে রয়েছে, আঠার (১৮)টি এপ্লিকেশন উন্নয়নাধীন/বাস্তবায়ন পর্যায়ে রয়েছে।

ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলাের আর্থিক লেনদেনের নিরাপত্তার জন্য আইসিটি পলিসি তৈরি করতে আইসিটি গাইডলাইন্স প্রদানের মাধ্যমে তথ্য ও প্রযুক্তি উন্নয়নে বাংলাদেশ ব্যাংক ক্রমাগত সহায়তা দিচ্ছে। বাংলাদেশ ব্যাংক ব্যাংকসমূহের আইসিটি কমপ্লায়েন্সের নিশ্চয়তা বিধানে নিয়মিত পরিদর্শনও করছে।

বাংলাদেশ ব্যাংক বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে সেন্ট্রাল ব্যাংক স্ট্রেংদেনিং প্রজেক্ট করে যার শতকরা সত্তর (৭০) ভাগ তথ্য প্রযুক্তি উপকরণ ক্রয়ের জন্য ব্যয় হবে। তথ্য প্রযুক্তি উপকরণগুলােতে বিদ্যমান রয়েছে নেটওয়ার্কিং, ব্যাংকিং এ্যাপ্লিকেশন, এন্টারপ্রাইজ রিসাের্সেস পানিং সলিউশন, এন্টারপ্রাইজ ভাটা ওয়্যারহাউস সলিউশন ও ইন্ট্রানেট সলিউশন।

নেটওয়ার্কিং প্রধান কার্যালয়ের সকল বিভাগকে এবং শাখা অফিসসমূহকে প্রধান কার্যালয়ের সাথে সংযুক্ত করবে, কর্মকর্তাগণের Knowledge Information Base উন্নয়নে ইন্ট্রানেট বাস্তবায়ন করবে, ডাটা সেন্টার ও ডিজাস্টার রিকভারি সাইট বাস্তবায়নের মাধ্যমে ভাটার নিরপাত্তা নিশ্চিত করবে। ডিজাস্টার রিকভরি সাইটে অনলাইন রিয়েল টাইম ব্যাকআপ দ্বারা ডাটা সিকিউরিটি নিশ্চিত করা হবে। সকল বিজনেস এ্যাপ্লিকেশন আইটি নেটওয়ার্কের মাধ্যমে চলবে।

এন্টারপ্রাইজ রিসাের্সেস প্লানিং এর আওতায় জেনারেল লেজার ও একাউন্টিং, একাউন্টস পেয়েবল, একাউন্টস রিসিভেবল, ক্যাশ ম্যানেজমেন্ট, ফিক্সড অ্যাসেটস, হিউম্যান রিসাের্সেস ও পেরােল এ্যাপ্লিকেশন, বাজেট এন্ড কস্ট সেন্টার একাউন্টিং সিস্টেম অটোমেশন বাস্তবায়ন করা হবে।

ব্যাংকিং এর আওতায় ব্যাংকিং এপ্লিকেশন সিস্টেম/মডিউল, ব্যাংক এন্ড গভর্নমেন্ট একাউন্টস, লােনস এন্ড আদার লেন্ডিং একটিভিটিস, ক্যাশিয়ার ট্রেলার ফাংশনস, রিস্ক ম্যানেজমেন্ট, রিকনসিলিয়েশন এ্যাপ্লিকেশন, ফরেন এক্সচেঞ্জ ম্যানেজমেন্ট, কারেন্সী ম্যানেজমেন্ট এন্ড এ্যাকাউন্টস, ট্রেজারী এন্ড সিকিউরিটি সিস্টেম/মডিউল, পাবলিক ডেট ম্যানেজমেন্ট মডিউল এবং ট্রেড ফাইন্যান্স অটোমেশন বাস্তবায়ন করা হবে।

এন্টারপ্রাইজ ডাটা ওয়্যারহাউজের আওতায় ফাইন্যান্সিয়াল সেক্টর স্টাটিসটিক্স, মনিটারী স্টাটিসটিক্স, ফরেন এক্সচেঞ্জ স্টাটিসটিক্স, ব্যালান্স অফ পেমেন্ট স্টাটিসটিকস, বাংলাদেশ অর্থনীতি সম্পর্কিত অন্যান্য পরিসংখ্যান, টাইম সিরিজ এনালাইসিস, ইকোনােমিক এ্যানালাইসিস এন্ড রিপােটিং, মনিটারী এ্যানালাইসিস এন্ড রিপােটিং, ফাইনান্সিয়াল সেক্টর এ্যানালাইসিস এন্ড রিপাের্টিং, ব্যালান্স অফ পেমেন্ট এ্যানালাইসিস এন্ড রিপাের্টিং এবং ইকোনােমিক মডেলিং অটোমেশন বাস্তবায়ন করা হবে।

বাংলাদেশ ব্যাংক ডিএফআইডি এর অর্থায়নে বাংলাদেশ অটোমেটেড ক্লিয়ারিং হাউজ সলিউশন এবং ক্রেডিট ইনফরমেশন সিস্টেম সলিউশন বাস্তবায়ন করতে যাচ্ছে যা সামগ্রিকভাবে আর্থিক প্রতিষ্ঠানের কর্মদক্ষতার বৃদ্ধি করবে।

বাংলাদেশ ব্যাংক আশা করে সিবিএসপি এবং ডিএফআইডি এর অধীনে ক্রয়কৃত সিস্টেমগুলাে এবং বর্তমানের সকল রিসাের্স-এর মধ্যে আর্জাতিকভাবে স্বীকৃত ও গ্রহণযােগ্য আন্তসংযােগ স্থাপিত হবে। ব্যবহারকারীদের জন্য সহজ ও সাবলীলভাবে সকল তথ্য প্রাপ্তি নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে বর্তমানে বিদ্যমান ইন-হাউজ এ্যাপ্লিকেশন সফটওয়্যারগুলাে নতুন সিস্টেমে ইন্টারফেইসড অথবা কনভার্ট অথবা মাইগ্রেট করা হবে।

বাংলাদেশ ব্যাংক তার সর্বাত্নক প্রচেষ্টায় যুতসই তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে কর্মদক্ষতা উন্নয়ন ও কার্যক্রমগুলো ফলপ্রসূ করে তুলতে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।

সোর্সঃ বাংলাদেশ ব্যাংক

Leave a Reply