বাংলাদেশ ব্যাংক (BB)

0
1341

ব্যাংকিং নিউজ বাংলাদেশঃ Bangladesh Bank বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক এবং দেশীয় আর্থিক ও আর্থিক ব্যবস্থার জন্য সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা। এটি বাংলাদেশ ব্যাংকের আদেশ, ১৯৭২ (P.O No. 127 of 1972) ১৬ ডিসেম্বর, ১৯৭১ থেকে কার্যকর হয়।

বর্তমানে বাংলাদেশ ব্যাংকের ৯টি অফিস রয়েছে। অফিসগুলো হলো- মতিঝিল, চট্টগ্রাম, সদরঘাট, খুলনা, বগুড়া, সিলেট, রাজশাহী, বরিশাল ও রংপুর। বাংলাদেশ ব্যাংকের মোট জনবল ৪,৯২৬ জন। তার মধ্যে ৩,৯১০ জন কর্মকর্তা এবং ১,০১৬ জন অধস্তন কর্মচারী রয়েছে।

এক নজরে
নাম Bangladesh Bank (BB)
বাংলাদেশ ব্যাংক
লোগো
প্রতিষ্ঠাকাল ১৯৭২
ধরন কেন্দ্রীয় ব্যাংক
উৎপত্তি State Bank of Pakistan
ঠিকানা বাংলাদেশ ব্যাংক, হেড অফিস, ২য় এনেক্স বিল্ডিং, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০
হট লাইন ১৬২৩৬
ফ্যাক্স +০০৮৮-০২-৯৫৩০২৭৩
ইমেইল [email protected]
ওয়েবসাইট www.bb.org.bd
সুইফট BBHOBDDH
কার্যাবলী

• Functions of the Bangladesh Bank (বাংলাদেশ ব্যাংকের ফাংশন)
Bangladesh Bank একটি আর্থিক ও আর্থিক খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা হিসেবে কাজ করে। বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রধান ফাংশনগুলো নিম্নে তুলে ধরা হলো-
– আর্থিক এবং ক্রেডিট নীতি প্রণয়ন এবং বাস্তবায়ন।
– বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক রিজার্ভ ব্যবস্থাপনা।
– মুদ্রা নোট ইস্যু।
– ব্যাংক ও ব্যাংক বহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠানের প্রবিধান এবং তত্ত্বাবধান, দেশিয় আর্থিক বাজারের প্রচার এবং উন্নয়ন।
– বাংলাদেশ সরকারের ব্যাংক হিসেবে কাজ করা।
– পেমেন্ট সিস্টেমের রেগুলেশন এবং তত্ত্বাবধান।
– মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ।
– ফরেন এক্সচেঞ্জ রেগুলেশন অ্যাক্টের বাস্তবায়ন।
– ডিপোজিট বীমা প্রকল্প পরিচালনা।
– ক্রেডিট তথ্য সংগ্রহ এবং তার বাস্তবায়ন।

• Core Policies of the Bangladesh Bank (বাংলাদেশ ব্যাংকের মূল নীতি)
বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রধান মূল নীতিগুলো নিম্নে তুলে ধরা হল-

• Monetary Policy (আর্থিক নীতি)
বাংলাদেশ ব্যাংকের আর্থিক নীতিমালার মূল উদ্দেশ্যগুলো হল-
– অভ্যন্তরীণ এবং বাইরের মূল্য স্থিতিশীলতা।
– টেকসই বৃদ্ধি এবং উন্নয়ন।
– অর্থনৈতিক ও দক্ষ সম্পদসমূহের পূর্ণ ব্যবহার।
– উচ্চ কর্মসংস্থান।
– আর্থিক এবং পেমেন্ট সিস্টেমের স্থিতিশীলতা।
– বাংলাদেশ ব্যাংক বছরের মধ্যে দুইবার (জানুয়ারি এবং জুলাই) মুদ্রানীতি ঘোষণা করে। বাংলাদেশের মুদ্রা নীতি বাস্তবায়নের জন্য বিভিন্ন টুলস যেমন- ব্যাংক হার, খোলা বাজার অপারেশন, রিপার্সেজ এগ্রিমেন্টস, রিভার্স রেপো এবং সংবিধিবদ্ধ রিজার্ভ রিজার্ভেশন প্রয়োগ করে থাকে।

• Reserve Management Strategy (রিজার্ভ ম্যানেজমেন্ট কৌশল)
– বাংলাদেশ ব্যাংক বিভিন্ন মুদ্রায় বাংলাদেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বজায় রাখে যাতে বিশ্ব মুদ্রা বাজারে সুদের হারের মধ্যে মুদ্রায় বিনিময় হার এবং অনিয়ন্ত্রিত ঝুঁকি থেকে ঝুঁকি কমিয়ে দেয়।
– বিভিন্ন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সাথে ব্যাংকের Nostro অ্যাকাউন্ট ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করা। এই অ্যাকাউন্টগুলোতে সংগৃহীত ফান্ড ট্রেজারি বিল, রেপো এবং অন্যান্য সরকারী কাগজপত্রগুলো সংশ্লিষ্ট মুদ্রায় বিনিয়োগ করা। বিভিন্ন উচ্চ-রেটযুক্ত এবং বাণিজ্যিক ব্যাংকের স্বল্প মেয়াদী আমানতগুলো বিনিয়োগ করে ব্যাংকটির উচ্চ হারে সার্বভৌম/ কর্পোরেট বন্ডগুলো ক্রয় করা।
– বাংলাদেশ ব্যাংকের একটি পৃথক বিভাগ বিনিয়োগের বিষয়ে কার্যকরী কার্যক্রম পরিচালনা করে, যা ডেপুটি গভর্নর কর্তৃক বাংলাদেশ ব্যাংকের বিনিয়োগ কমিটির প্রধান দ্বারা নির্ধারিত বিনিয়োগ নীতিমালা দ্বারা পরিচালিত হয়। বিনিয়োগ নীতির অন্তর্নিহিত নীতি ন্যূনতম বাজার ঝুঁকিতে বিনিয়োগের সর্বোত্তম রিটার্ন নিশ্চিত করার জন্য।

• Capital Adequacy for Banks and Financial Institutions (ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলির জন্য পুঁজি যথেষ্টতা)
উভয় ক্ষেত্রে, Basel II কে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর মূলধন পুঁজিকে শক্তিশালী করার জন্য চালু করা হয়েছে। ০১ জানুয়ারী ২০১০ তারিখে, Basel II এর সম্পূর্ণ বাস্তবায়ন ব্যাংকগুলোর জন্য শুরু হয়েছিল। বাংলাদেশের ব্যাংকগুলোকে অবশ্যই রাজস্ব হিসাবে ৪ বিলিয়ন বা মোট ঝুঁকিযুক্ত সম্পদের ১০%, যেটি উচ্চতর হবে জমা রাখতে হবে।আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য, Basel II এর সম্পূর্ণ বাস্তবায়ন ০১ জানুয়ারী ২০১২ থেকে শুরু হয়। এখন থেকে, বাংলাদেশের আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে অবশ্যই রাজস্ব হিসাবে ১ বিলিয়ন বা মোট ঝুঁকিযুক্ত সম্পদের ১০%, যেটি উচ্চতর হবে জমা রাখতে হবে।

• Interest Rate Policy (সুদের হার নীতি)
আর্থিক সেক্টর সংস্কার কর্মসূচির আওতায়, ব্যাংকগুলো তাদের আমানত এবং ঋণের হার এক্সপোর্ট ক্রেডিট ব্যতীত চার্জ/ ফ্রী নির্ধারন করতে পারে। বর্তমানে প্রাক-চালানের রপ্তানি ব্যতীত ব্যাংকগুলোর জন্য কোন সুদের হারে ক্যাপ ঋণ নেই। তবে একই ঋণ বিভাগে ঋণ গ্রহীতাদের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত তুলনামূলক ঝুঁকির উপাদানগুলো বিবেচনা করে ব্যাংকগুলো ৩% পর্যন্ত সুদের হার পার্থক্য করতে পারে।

• Deposit Insurance (আমানত বীমা)
ডিপোজিট বীমা স্কিম (DIS) আমানতকারীর জন্য একটি নিরাপত্তা জাল হিসেবে কাজ করে। এটি ১৯৮৪ সালের আগস্ট মাসে চালু করা হয়েছিল। DIS বাজারের শৃঙ্খলা বৃদ্ধির জন্য, আর্থিক খাতকে নৈতিক বিপদ হ্রাসে এবং ব্যাংক ব্যর্থতার ক্ষেত্রে জনসাধারণকে ন্যূনতম খরচে নিরাপত্তা জাল প্রদান করার জন্য সহায়তা করে।
DIS ছাড়াও ব্যাংক ব্যর্থতার ক্ষেত্রে ছোট আমানতকারীদের কিছু সুরক্ষা প্রদানের জন্য একটি ডিপোজিট ইনসিওরেন্স ট্রাস্ট ফান্ড (DITF) তৈরি করা হয়েছে। তবে এই অর্থের পরিমাণ ০.০১ মিলিয়ন ছাড়িয়ে যাবে না। ডিআইটিএফের ট্রাস্টি বোর্ড বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি।

• Insurance Authority (বীমা কর্তৃপক্ষ)
বীমা উন্নয়ন এবং রেগুলেটরি অথরিটি (IDRA) ২৬ শে জানুয়ারী, ২০১১ তারিখে বীমা ব্যবস্থার প্রধান নিয়ন্ত্রককে স্থানান্তরিত করে। এটি বীমা শিল্পের নিয়ন্ত্রক হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হয় এবং বীমা উন্নয়ন এবং রেগুলেটরি অ্যাক্ট ২০১০ দ্বারা ক্ষমতায়ন করা হয়। (IDRA) মন্ত্রণালয়ের অধীনে কাজ করে অর্থ ও চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে একটি চার সদস্যের নির্বাহী সংস্থা। তিনি সাধারণ তত্ত্বাবধান এবং ব্যবসায়িক দিকনির্দেশনার জন্য দায়ী।IDRAs মিশন বীমা নীতির অধীনে নীতি-নির্ধারকদের এবং অন্যান্য স্টেকহোল্ডারদের স্বার্থ রক্ষা করা হয়। এটি বীমা শিল্পের তত্ত্বাবধান এবং নিয়ন্ত্রণ করে এবং বীমা শিল্পের সুশৃঙ্খল ও নিয়মানুগ বৃদ্ধির নিশ্চিত করে।

• Regulator of Capital Market Intermediaries (ক্যাপিটাল মার্কেট মধ্যস্থতাকারীদের রেগুলেটর)
সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (SEC) জুন ০৮, ১৯৯৩ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। এটি চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে একটি পাঁচ সদস্যের কমিশন। এই কমিশন অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে সংযুক্ত করা হয়।
এসইসির লক্ষ্য নিরাপত্তা, বিনিয়োগকারীদের স্বার্থ রক্ষা করা, ন্যায্য, দক্ষ ও স্বচ্ছ সিকিউরিটিজ বাজারের বিকাশ এবং বজায় রাখা। এটি সিকিউরিটিজ আইনগুলো যথাযথভাবে ইস্যু করা এবং সিকিউরিটিজ আইনের সাথে সম্মতি প্রদান করে। SEC এর কিছু ফাংশন স্টক এক্সচেঞ্জ বা অন্যান্য সিকিউরিটিজ মার্কেটের নিয়ন্ত্রণ, স্টক-ব্রোকারদের নিবন্ধন এবং প্রবিধান, সাব-দালাল, শেয়ার ট্রান্সফার এজেন্ট, মার্চেন্ট ব্যাংকার, ট্রাস্ট ক্রস, আন্ডারাইটার্স, বিনিয়োগ পরামর্শদাতা এবং সিকিউরিটিজ মার্কেটে অন্যান্য মধ্যস্থতাকারী।
সেই সাথে এসইসি সিকিউরিটিজ মার্কেটে প্রতারণামূলক এবং অপ্রত্যাশিত ব্যবসায়িক প্রথা নিষিদ্ধ করে। এটি বিনিয়োগকারীদের শিক্ষা দান করে এবং সিকিউরিটিজ মার্কেটের মধ্যস্থতাকারীদের প্রশিক্ষণ প্রদান করে। এখানে সিকিউরিটিজ ইনসাইডার ট্রেডিং নিষিদ্ধ। শেয়ারের যথাযথ নিয়ন্ত্রণ এবং কোম্পানির গ্রহণযোগ্য সম্পদের নিয়ন্ত্রক এসইসি-এর অন্যতম কার্যকরী কমিটি অন্য কোনও ইস্যুকারী বা সিকিউরিটিজ ডিলার, স্টক এক্সচেঞ্জ এবং মধ্যস্থতাকারী, পরিদর্শন, সিকিউরিটিজ মার্কেটে নিয়ন্ত্রক সংস্থা হিসেবে কাজ করে থাকে।

• Regulator of Micro Finance Institutions (মাইক্রো ফিন্যান্স ইনস্টিটিউট রেগুলেটরি)
এই প্রতিষ্ঠানটি একটি নিয়ন্ত্রক কাঠামোর অধীনে NGO-MFIs (Non-government Microfinance Institutions) আনতে করা হয়েছিল। মাইক্রোক্রেডিট রেগুলেটরি অথরিটি অ্যাক্ট, ২০০৬ এর অধীনে বাংলাদেশের NGO-MFIs ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রমের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে সরকার মাইক্রো ক্রেডিট রেগুলেটরি অথরিটি (MRA) প্রতিষ্ঠা করেছে। এই আইনটি বাস্তবায়নের জন্য ক্ষমতাপ্রাপ্ত এবং দায়ী এবং একটি পূর্ণাঙ্গ নিয়ন্ত্রক কাঠামোর আওতায় বাংলাদেশকে ক্ষুদ্রঋণ খাতের আওতায় আনা।

• Overview of Financial System of Bangladesh (বাংলাদেশের আর্থিক সিস্টেমের সংক্ষিপ্ত বিবরণ)
বাংলাদেশ এর আর্থিক ব্যবস্থা তিনটি সেক্টরে গঠিত হয়। এই খাতগুলোকে ডিগ্রী রেগুলেশন অনুযায়ী শ্রেণীভুক্ত করা হয়েছে।

• Formal Sector (আনুষ্ঠানিক সেক্টর)
আনুষ্ঠানিক সেক্টরটির অধীনে ব্যাংক, ব্যাংক বহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠান, বীমা কোম্পানি, ব্রোকারেজ হাউস, মার্চেন্ট হাউস পুঁজিবাজারে মধ্যস্থতাকারীর মতো সব নিয়ন্ত্রিত প্রতিষ্ঠান এবং মাইক্রো ক্রেডিট প্রতিষ্ঠানগুলো রয়েছে।

• Semi-Formal Sector (আধা-আনুষ্ঠানিক সেক্টর)
আধা-প্রাতিষ্ঠানিক খাতে সেই সমস্ত নিয়ন্ত্রিত প্রতিষ্ঠানগুলো রয়েছে যেগুলো কেন্দ্রীয় ব্যাংক, বীমা কর্তৃপক্ষ, সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন অথবা অন্য কোনো অনুমোদিত আর্থিক নিয়ন্ত্রকের আওতায় পড়ে না। এই সেক্টর প্রধানত হাউস বিল্ডিং ফাইন্যান্স করপোরেশন (HBFC), পল্লী কর্ম সহায়তা ফাউন্ডেশন (PKSF), সমবায় ব্যাংক, গ্রামীণ ব্যাংক, বেসরকারী সংস্থা (NGO) এবং অসামরিক সরকারি কর্মসূচির মতো বিশেষ আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতিনিধিত্ব করে।

• Informal Sector (ইনফরমাল সেক্টর)
অনানুষ্ঠানিক খাতে বেসরকারী মধ্যস্থতাকারী সেই সকল প্রতিষ্ঠান রয়েছে যা অনিয়ন্ত্রিত।

• Institutional Development (প্রাতিষ্ঠানিক উন্নয়ন)
কেন্দ্রীয় ব্যাংকের শক্তিশালীকরণ প্রকল্পের মাধ্যমে বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রাতিষ্ঠানিক উন্নয়নে অনেক কিছু অর্জন করেছে। তাদের মধ্যে যেগুলো আছে-
– এন্টারপ্রাইজ ডেটা ওয়ারহাউসের প্রতিষ্ঠা (প্রক্রিয়াকরণের অধীনে) যার মাধ্যমে সমগ্র ব্যাংকিং এবং FI শিল্পকে একক নেটওয়ার্কে আনতে হবে যেগুলোর মাধ্যমে ডেটা ভাগ করা, রিপোর্ট করা এবং তত্ত্বাবধান করা যায়।
– এন্টারপ্রাইজ রিসোর্স পরিকল্পনা (ERP) বাস্তবায়ন বাংলাদেশ ব্যাংকের কার্যকরী কাঠামোর অটোমেশনে একটি বড় পদক্ষেপ।
– বাংলাদেশ ব্যাংকের শক্তিশালী অনলাইন উপস্থিতি রয়েছে। তার ওয়েবসাইট অর্থনৈতিক এবং আর্থিক তথ্য সংক্রান্ত দেশের সবচেয়ে তথ্যবহুল এবং সংকীর্ণ ওয়েবসাইট আছে।
– গত কয়েক বছরে বাংলাদেশ ব্যাংক বিভিন্ন অর্থনৈতিক ও আর্থিক বিষয়ক বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সেমিনার আয়োজন করেছে।
– প্রয়োজনীয় অনলাইন যোগাযোগের সুবিধা সহ অভ্যন্তরীণ নেটওয়ার্কিং ব্যবস্থা গড়ে তোলা হয়েছে যা বাংলাদেশ ব্যাংকের অফিস অপারেশনে সহায়ক হিসেবে কাজ করছে।

• Regulatory Development (রেগুলেটরি ডেভেলপমেন্ট)
বাংলাদেশ ব্যাংকের রেগুলেটরি ডেভেলপমেন্ট নিম্নোক্ত বিষয়গুলোকে অন্তর্ভুক্ত করেছে-
– পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তন সংক্রান্ত নির্দেশিকা ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য ঝুঁকি সংক্রান্ত সার্কুলার ইস্যু করা হয়েছে।
– গ্রীন ব্যাংকিং সংক্রান্ত নীতি নির্দেশিকাও জারি করা হয়েছে।
– Basel-II (আন্তর্জাতিক মূলধন পর্যাপ্ততা মান) এর পূর্ণ বাস্তবায়ন ব্যাংকিং এবং FI শিল্প উভয় ক্ষেত্রেই কার্যকর করা হচ্ছে।
– ব্যাংকগুলোকে পুঁজিবাজার অপারেশনের জন্য আলাদা সাবসিডিয়ারি তৈরি করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে এবং ব্যাংকগুলোর পুঁজিবাজারে অপারেশন নিরীক্ষণ করা হয়েছে।
– ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলির জন্য স্ট্রেস টেস্টিং-এর নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে যা বিভিন্ন প্রতিকূল অবস্থার অধীনে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের স্থিতিস্থাপকতা নিরূপণ করা হচ্ছে।
– ব্যাংকগুলোর ঝুঁকি ব্যবস্থাপনায় পৃথক ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা ইউনিট গড়ে তোলার জন্য বলা হয়েছে।
– কর্পোরেট সোশ্যাল রেসপনসিবিলিটি (CSR) এ ব্যাংকগুলোর অংশগ্রহণ বৃদ্ধি করতে তত্ত্বাবধান করা হয়েছে।
– বাংলাদেশ ব্যাংকের কার্যকর ও সময়োপযোগী পদক্ষেপের জন্য, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বৈশ্বিক অর্থনৈতিক বিপর্যয়ের সময় কোন প্রতিকূল পরিস্থিতির মুখোমুখি হয়নি।
– এন্টি মানি লন্ডারিং (AML)/ আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবিরোধী আর্থিক সহায়তা (CFT) বিষয়ক আন্তর্জাতিক মানদণ্ড, অর্থ পরিবর্তনকারী, বীমা কোম্পানি এবং ডাক রেমিটেন্সের নির্দেশিকা ইতিমধ্যেই প্রচারিত হয়েছে।

• Automation and Technological Development (অটোমেশন এবং প্রযুক্তিগত উন্নয়ন)
গত কয়েক বছরে বাংলাদেশ ব্যাংকের সক্রিয় ও অগ্রগামী দৃষ্টিভঙ্গির কারণে, ব্যাংকিং সেক্টরটি অটোমেশনে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি অর্জন করেছে। যার মধ্যে রয়েছে-
– স্বয়ংক্রিয় ক্রেডিট ইনফরমেশন ব্যুরো (CIB) সেবা ঋণ গ্রহণের জন্য একটি সুশৃঙ্খল পরিবেশ তৈরি করা সম্ভাব্য এবং বিদ্যমান ঋণগ্রহীদের জন্য ক্রেডিট সম্পর্কিত তথ্য প্রদান করে। যা উন্নত এবং দক্ষ সিস্টেমের সাথে, ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা আরও কার্যকর হবে। ব্যাংক এবং আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো সারা বছর CIB ডাটাবেসে ২৪/৭ ক্রেডিট তথ্য সরবরাহ করতে পারে। আপনি সিআইবি অনলাইন থেকে ক্রেডিট রিপোর্ট অ্যাক্সেস করতে পারেন।
– বাংলাদেশ ব্যাংকের ওয়েবসাইট থেকে ব্যাংকের L/C সম্পর্কে সমস্ত প্রয়োজনীয় তথ্য সংরক্ষণের জন্য এবং L/C Monitoring সিস্টেম চালু করা হয়েছে। সিস্টেম অনুমোদিত ব্যাংকগুলোকে তাদের L/C তথ্য আপলোড এবং ডাউনলোড করতে অনুমতি দেয়।
– সকল শিডিউল ব্যাংকগুলোকে বাংলাদেশ ব্যাংকের অর্ডার ৩৬ (৩) এর শর্তাবলী অনুযায়ী অফ-সাইটের তত্ত্বাবধানে প্রতি বৃহস্পতিবার সাপ্তাহিক স্টেটমেন্ট জমা দিতে হয়। এই বিবৃতিটি এখন বাংলাদেশ ব্যাংকের ওয়েবসাইট থেকে অনলাইন জমা দেয়া যায়।
– বাংলাদেশ ব্যাংকে ই-রিটার্ন সার্ভিস চালু করা হয়েছে।
– বাংলাদেশে রপ্তানি নিরীক্ষণের জন্য অনলাইন রপ্তানি মনিটরিং সিস্টেম ব্যবহার করা হয়। এই সেবার মাধ্যমে, ব্যাংকগুলো এবং ব্যাংকের AD শাখাগুলো রপ্তানি প্রতিবেদন প্রদান করতে পারবে।
– বাংলাদেশ অটোমেটেড ক্লিয়ারিং হাউস (BACH) ম্যানুয়াল ক্লিয়ারিং সিস্টেমের পরিবর্তে কাজ করছে যা ইন্টার-ব্যাংক চেক ইত্যাদিকে তাত্ক্ষণিকভাবে নিষ্পত্তি করে দেয়।
– ইলেক্ট্রনিক ফান্ড স্থানান্তর (EFT) চালু করা হয়েছে। এটি তহবিল স্থানান্তরের একটি তাত্ক্ষণিক এবং কার্যকর উপায়।
– মোবাইল ব্যাংকিংয়ের কারনে ব্যাংকিং সেক্টরে অনেক অগ্রগতি হয়েছে। এই সেবার আওতায় মোবাইল অপারেটরদের মাধ্যমে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে ব্যাংকিং সেবা প্রদান করছে।
– বাংলাদেশের ইন্টারনেট ব্যাংকিং লেনদেনের উদ্বোধন হল গত কয়েক বছরে পুঁজি বাজারের জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উন্নয়ন। মাইক্রো ফিন্যান্স ইনস্টিটিউটগুলো তাদের রিপোর্ট MFI এর জন্য অনলাইন রিপোর্ট এর মাধ্যমে জমা দেয়।

যোগাযোগ

Unit of Bangladesh Bank (বাংলাদেশ ব্যাংকের বিভিন্ন ইউনিট)

• বাংলাদেশ ব্যাংকের কেন্দ্রীয় তথ্য ইউনিট
এ.এস.এম. নুরুর রহমান
যুগ্ম পরিচালক, মানব সম্পদ বিভাগ-১
ফোন: + ৮৮০-২৫৫৬৬৫০০১-২০/ ২১৩১৫
ইমেইল: [email protected]
[email protected]

• Hotline for customer’s complaint (গ্রাহক অভিযোগ হটলাইন)
১৬২৩৬ ডায়াল করুন
ফ্যাক্স: ৮৮-০২-৯৫১১৭৭১
ই-মেইল: [email protected]

• Website Information (ওয়েবসাইট তথ্য)
ইমেইল: [email protected]

• eRecruitment Enquiries (ই-চাকরি জিজ্ঞাস্য)
ইমেইল: [email protected] (Bangladesh Bank)
[email protected] (BSCS)

• BB eTender Enquiries (বিবি ই-টেন্ডার অনুসন্ধান)
ইমেইল: [email protected]

Leave a Reply