আল-আরাফাহ্ ইসলামী ব্যাংকের ২৫ বছরের পথ চলা

0
487

সর্বাধুনিক ব্যাংকিং প্রযুক্তির উৎকর্ষে উন্নত গ্রাহক সেবা প্রদানের প্রতিশ্রুতিতে আল-আরাফাহ্ ইসলামী ব্যাংক বদ্ধপরিকর। অপার সম্ভাবনাকে কাজে লাগিয়ে সাফল্যের নতুন নতুন দ্বার উন্মােচন করে দেশের ইসলামী ব্যাংকিং জগতের শীর্ষে পৌঁছানাের লক্ষ্যে অবিচল আল-আরাফাহ্ ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড।

শরীয়াহ মানে স্রষ্টার বিধান
ইসলামী আদর্শ, আইন এবং ঐতিহ্য লালনের মধ্য দিয়ে যাবতীয় ব্যাংকিং লেনদেন সম্পন্ন করার মাধ্যমে দেশের আর্থ-সামাজিক দায়বদ্ধতা পালনের পাশাপাশি আপামর জনসাধারণের সার্বিক কল্যাণ ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করাই শরীয়াহভিত্তিক ব্যাংকিং-এর মূলনীতি ও ভিত্তি। শরীয়াহভিত্তিক ব্যাংকিংয়ের যাবতীয় লেনদেন ও গ্রাহক সেবার মধ্য দিয়ে কল্যাণ ও শিল্পোন্নয়ন নিশ্চিত করার নিরলস যাত্রায় আল-আরাফাহ্ ইসলামী ব্যাংক এখন নতুন রূপে, নতুন উদ্যমে শুরু করছে বিশ্বস্ত ব্যাংকিং ধারায় আগামীর পথচলা।

ইসলামী ব্যাংকিং-এর ইতিহাস
পবিত্র আল-কুরআন এর বিধিবিধান অনুসরণ করে সুদমুক্ত লেনদেনের এক ব্যাংকিং ব্যবস্থা নিয়ে বিশ্বে প্রথমবারের মতাে ১৯৫০ সালে ইসলামী ব্যাংকিং-এর পরীক্ষামূলক যাত্রার সূচনা হলেও ১৯৬৩ সালে মিশরে ইসলামী ব্যাংক প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে এক নতুন ধারার ব্যাংকিং শুরু হয়।

১৯৬৯ সালে মালয়েশিয়ায় এবং ১৯৭৫ সালে জেদ্দায় ইসলামিক ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক (IDB) ও দুবাইয়ে ইসলামী ব্যাংকিং-এর আবির্ভাব ঘটে।

এ উপমহাদেশ তথা বাংলাদেশে বেসরকারি পর্যায়ে প্রথম শরীয়াহভিত্তিক ব্যাংকিং যাত্রা শুরু ১৯৮৩ সালে। ক্রমবিকশিত সমৃদ্ধির ধারাকে গতিশীল করতে দেশের প্রখ্যাত ইসলামিক স্কলার এবং প্রথিতযশা বিশ্বাসী ব্যবসায়ীদের উদ্যোগে ১৯৯৫ সালে শরীয়াহভিত্তিক আল-আরাফাহ্ ইসলামী ব্যাংক-এর পথচলা শুরু হয়। দিগন্ত বিস্তৃত সমৃদ্ধির পথ ধরে দেশ-বিদেশে ছড়িয়ে পড়ে আল-আরাফাহ্ ইসলামী ব্যাংক-এর সুনাম। যুগােপযােগী ব্যাংকিং সেবার এই পথচলায় একদিকে যেমন নিশ্চিত হয়েছে শিল্প-বাণিজ্যের প্রকৃত উন্নয়ন, তেমনি অন্যদিকে অর্জিত হয়েছে সর্বস্তরের মানুষের দৃঢ় আস্থা, ভালােবাসা ও অবিচল বিশ্বাস।

এআইবিএল-এর ২৫ বছর
পথচলা শুরু
১৯৯৫ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর মতিঝিল শাখা উদ্বোধনের মাধ্যমে শরীয়াহভিত্তিক আধুনিক ব্যাংকিং সেবার পথচলা শুরু করে এআইবিএল।
❏ ব্যবসায়িক লক্ষ্য
প্রখ্যাত ইসলামিক স্কলার ও বিশ্বাসী ব্যবসায়ীদের তত্ত্বাবধানে শরীয়াহভিত্তিক ব্যবসা-বাণিজ্য পরিচালনায় দেশের আর্থ-সামাজিক অগ্রগতি নিশ্চিত করা।
❏ শততম শাখার কৃতিত্ব
২৭ নভেম্বর, ২০১২ সালে টেকনাফ শাখার উদ্বোধন, যা এআইবিএল-এর ১০০তম শাখা।

❏ এজেন্ট ব্যাংকিং
একটি অন্তর্ভুক্তিমূলক অর্থনীতির রূপরেখার ডিজিটাল বাংলাদেশ করার লক্ষ্যে ব্যাংকিং সুবিধাবঞ্চিতদের সেবা দিতে এআইবিএল ২০১৫ সালে এজেন্ট ব্যাংকিং কার্যক্রম শুরু করে।
❏ ডিজিটাল পথচলা ও বিস্তৃতি
দ্রুত ও প্রগতিশীল ব্যাংকিং সেবার ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে এআইবিএল-এর প্রযুক্তি নির্ভর অনলাইন যাত্রা শুরু হয় ২৭ মার্চ, ২০০৮। সর্বোচ্চ গ্রাহক সেবা সর্বস্তরে পৌছে দিতে বর্তমানে এআইবিএল-এর ১৮২টি শাখা ও ২৬৫টি এজেন্ট আউটলেট শতভাগ অনলাইন নেটওয়ার্ক-এর আওতায়।
❏ চেয়ারম্যান
এআইবিএল-এর বর্তমান চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আব্দুস সামাদ লাবু। তিনি দেশের প্রথিতযশা উদ্যোগীদের মধ্যে অগ্রগণ্য। তিনি দেশীয় ও আন্তর্জাতিক বিভিন্ন বাণিজ্যিক সংস্থা ছাড়াও বহুবিধ সামাজিক কাজে নিয়ােজিত।

❏ প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান
প্রথিতযশা ইসলামিক স্কলার, অর্থনীতিবিদ ও সাবেক সচিব আলহাজ্ব এ জেড এম শামসুল আলম, এআইবিএল-এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান। বাংলাদেশের ব্যাংকিং অঙ্গনে সঠিক পথ খুঁজে পাওয়া সম্ভব হয়েছিল তারই যােগ্য নেতৃত্বে।
❏ সাবসিডিয়ারি প্রতিষ্ঠান
আল-আরাফাহ্ ইসলামী ব্যাংক-এর প্রধান দুটি সাবসিডিয়ারি প্রতিষ্ঠান এআইবিএল ক্যাপিটাল মার্কেট সার্ভিসেস লিমিটেড ও এআইবিএল ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট লিমিটেড।
❏ CRISL
CRISL কর্তৃক ব্যাংকিং খাতে স্থিতিশীল রেটিং সমৃদ্ধ দীর্ঘমেয়াদে AA ও স্বল্পমেয়াদে ST-2 রেটিং প্রাপ্ত।

❏ আন্তর্জাতিক ক্রেডিট মূল্যায়ন
আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন ক্রেডিট রেটিং সংস্থা মুডি’ স ইনভেস্টরস সার্ভিস প্রদত্ত B1 রেটিং প্রাপ্ত বাংলাদেশের প্রথম ইসলামী ব্যাংক এআইবিএল।
❏ পুরস্কার ও সাফল্য
ICMAB বেস্ট কর্পোরেট অ্যাওয়ার্ড, ইন্ডাস্ট্রি অ্যাওয়ার্ড ও বাংলাদেশ ব্যাংক-এর পক্ষ থেকে কৃষি/ পল্লী বিনিয়ােগে প্রশংসাপত্রসহ জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল-এ A গ্রেড প্রাপ্ত।
❏ ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও
দীর্ঘ ব্যাংকিং অভিজ্ঞতা সম্পন্ন এবং কর্পোরেট অঙ্গনের অত্যন্ত সুপরিচিত ব্যক্তিত্ব জনাব ফরমান আর চৌধুরী এআইবিএল-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও হিসেবে দায়িত্বরত।

Leave a Reply