ব্যাংকিং খাতে অশুভ প্রতিযোগিতা প্রশমন করতে যা করণীয়

0
2690

ব্যাংকিংয়ে অশুভ প্রতিযোগিতা প্রশমন করে সুশাসন আনতে আমি কিছুদিন আগে ফেসবুকে কয়েকটা প্রস্তাব রেখেছিলাম। পরামর্শগুলো বিআরপিডির কর্মকতাসহ দেশের শীর্ষ একজন বিনিয়োগ বিশেষজ্ঞের দৃষ্টি আকর্ষন করেছে।

উনারা আমাকে বিষয়টি একটি Structured Policy Suggestion আকারে লিখে পাঠানোর জন্য বলেছেন যার অগ্রগতি প্রায় শেষ পর্যায়ে। এ পর্যায়ে মর্টগেজ সম্পত্তির অতিমূল্যায়ন শীর্ষক একটি বিষয় যোগ করা হবে যার সারাংশ এরকমঃ

১. সার্ভেয়ার কর্তৃক Valuation কে অন্ধভাবে ধরে তার বিপরীতে বিনিয়োগ sanction করা ঠিক হবে না। অনেক সময় সার্ভেয়ররা অপেশাদারীত্ব ও দুনীর্তির পরিচয় দিয়ে সম্পত্তির মূল্য বাজারমূল্যের চেয়ে অনেক বেশি ধরেন। তাই Surveyor Value ও শাখা কর্তৃক Assessed Value এর মাঝে একটা বাস্তবসম্মত সমন্বয় দরকার।

তাছাড়া Surveyor valuation এর প্রতি অতি নির্ভরশীলতা শাখার কর্মকর্তাদের Responsibility ও Accountability কে দূর্বল করে দিবে। কেননা একবার অতিমূল্যায়িত হয়ে তার বিপরীতে বিনিয়োগ দেয়া হয়ে গেলে ব্যাংক দীর্ঘমেয়াদী ঝুঁকিতে পড়ে যাবে যেটা mitigate করা অনেকটা অসম্ভব হয়ে যাবে।

উল্লেখ্য, পাশ্চাত্যসসহ ব্যাংকিং ব্যবস্থার বিপর্যয়ের মূল কারন কিন্তু এই মর্টগেজ সম্পত্তির অতিমূল্যায়ন এবং এটা আমাদের দেশে প্রকট হয়ে দাড়িয়েছে।

২. অন্য ব্যাংক থেকে Take Over করে যখন বিনিয়োগ গ্রাহক নতুন ব্যাংকে আসে তখন আগের ব্যাংকে মর্টগেজকৃত সম্পত্তি নতুন ব্যাংক তিন বছরের মধ্যে (১ম ব্যাংকের valuation date হতে) Reassessment করে বাড়াতে পারবে না যদিনা তার অবকাঠামোগত কোন বিশেষ পরিবরর্তন হয়। এক্ষেত্রে পূর্বেকার ব্যাংকের value এবং valuation date নতুন ব্যাংকের Sanction Advice এ উল্লেখ থাকতে হবে।

এ বিষয়ে আমার আগের প্রস্তাবগুলোঃ
“ব্যাংকিং খাতে অশুভ প্রতিযোগিতা জনিত কারনে বিনিয়োগে যে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হয়েছে তা প্রশমন/ নিয়ন্ত্রণের জন্য দুটো ব্যবস্থা গ্রহন করা জরুরী বলে আমি মনে করিঃ

১. কোন গ্রাহক তার বর্তমান ব্যাংক থেকে বর্ধিত লোন/ বিনিয়োগ সীমা গ্রহন (accept) করার পর কমপক্ষে ৬ মাসের মধ্যে (বিনিয়োগের প্রকৃতিবেধে আরও বেশি হতে পারে) অন্যকোন ব্যাংকে চলে যেতে পারবেন না। এবং

২. অন্য ব্যাংকে চলে যাবার ক্ষেত্রে দ্বিতীয় ব্যাংক অন্য ব্যাংকের ১০০% দায় পরিশোধ করতে পারবে না। গ্রাহকের কমপক্ষে ৩০% দায় তার নিজ তহবিল থেকে শোধ করতে হবে।

বাংলাদেশ ব্যাংক এ দুটো নিয়ম বেঁধে দিলেঃ
১. sanction কেনাবেঁচা কমে যাবে,
২. ঋন নিয়ে ঋন পরিশোধের সর্বনাশী চক্র বাধাগ্রস্ত হবে,
৩. গ্রাহকের ব্যবসায় মনযোগ বাড়বে,
৪. গ্রাহক পাওনা (receivable) আদায়ে সচেতন হবে,
৫. গ্রাহক অধিক লোভাতুর ও অস্থির হবেন না,
৬. Fund Diversion কমে যাবে,
৭. ব্যাংকগুলোও অতো আগ্রাসী হতে পারবে না,
৮. নতুন উদ্যোক্তা তৈরীর কার্যক্রম বাড়বে,
৯. খেলাপী কমে যাবে,
১০. মুদ্রাস্ফীতি কমে যাবে, এবং
১১. শেয়ার মার্কেটের মতো ব্যাংকিংয়ে ফুলে উঠে আবার দ্রুত ধস নামবে না।”
ব্যাংকিং এ প্রতিযোগিতা থাকবে কিন্তু ফটকাবাজারী নয়।

Courtesy: Syed Walid Rahman

Leave a Reply