ইসলামী ব্যাংকে দুই নতুন পরিচালক

0
355

ব্যাংকিং নিউজ বাংলাদেশঃ ইসলামি উন্নয়ন ব্যাংকের (আইডিবি) ছেড়ে দেওয়া শেয়ার কেনে ইসলামী ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদে দুজন পরিচালক মনোনয়ন দিয়েছে দুটি স্বল্পখ্যাত প্রতিষ্ঠান। এর মধ্যে জেডএমসি বিল্ডার্স নামের একটি প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি হিসেবে পরিচালক হয়েছেন দুর্নীতি দমন কমিশনের সাবেক কমিশনার সাহাবুদ্দিন চুপ্পু। এক্সেলশিওর ইমপেক্স নামের আরেকটি প্রতিষ্ঠান পরিচালক হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ আবু আসাদকে। এর মধ্যে সাহাবুদ্দিন চুপ্পুর নিয়োগে বাংলাদেশ ব্যাংক চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে ও আবু আসাদের অনুমোদন প্রক্রিয়াধীন আছে।

ইসলামী ব্যাংকের চেয়ারম্যান আরাস্তু খান এ বিষয়ে বলেন, ‘শেয়ারধারী দুটি প্রতিষ্ঠান তাঁদের পরিচালক হিসেবে মনোনয়ন দিয়েছে। আমরাও তাতে অনুমোদন দিয়েছি।’ প্রতিষ্ঠান দুটির মালিক কারা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘দুটিই চট্রগ্রামভিত্তিক’।

গত ৩০ মার্চ ইসলামী ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের সভায় আইডিবির প্রতিনিধি ও ব্যাংকটির পরিচালক আরিফ সুলেমান তাঁদের হাতে থাকা সাড়ে ৭ শতাংশ শেয়ারের মধ্যে ২ দশমিক ১ শতাংশ রেখে বাকিটা ছেড়ে দেওয়ার ঘোষণা দেন। এরপর গত ২৩ মে ঢাকা ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের ওয়েবসাইটে ঘোষণা দেওয়া হয় যে আইডিবি তাদের হাতে থাকা ১২ কোটি ৭ লাখ ৮৮ হাজার ৫৮৫ শেয়ারের মধ্যে ৮ কোটি ৬৯ লাখ ৩৯ হাজার ৯৬০ শেয়ার বিক্রি করে দেবে। এদিনই ইসলামী ব্যাংকের পরিচালক প্রতিষ্ঠান এক্সেল ডাইং অ্যান্ড প্রিন্টিং ঘোষণা দিয়ে ৩ কোটি ২০ লাখ ৩৮ হাজার ৮১৪ শেয়ার কেনার ঘোষণা দেয়। প্রতিষ্ঠানটি ১০০ কোটি ৯২ লাখ টাকায় এসব শেয়ার কিনে নেয়। ১৭৩ কোটি টাকায় বাকি ৫ কোটি ৪৯ লাখ শেয়ার কিনে নেয় জেডএমসি বিল্ডার্স ও এক্সেলশিওর ইমপেক্স নামে দুটি স্বল্পখ্যাত প্রতিষ্ঠান।

২৭৪ কোটি টাকায় আইডিবির ছেড়ে দেওয়া শেয়ার কিনে নেয় তিন প্রতিষ্ঠান। ‘ব্লক ট্রেড’-এর (একসঙ্গে বিপুল পরিমাণ শেয়ার কেনাবেচা) মাধ্যমে এসব শেয়ার বেচাকেনা হওয়ায় সাধারণ শেয়ারহোল্ডাররা এতে অংশগ্রহণের সুযোগ পাননি। শেয়ার বেচাকেনার দায়িত্ব পালন করেছে রিলায়েন্স ব্রোকারেজ সার্ভিসেস। প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান এস আলম গ্রুপ ও ফার্স্ট সিকিউরিটি ব্যাংকের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাইফুল আলম।

এরপরই গত ৩১ মে ইসলামী ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের সভায় জেডএমসি বিল্ডার্সের পক্ষে সাহাবুদ্দিন চুপ্পুকে পরিচালক নিয়োগের সিদ্ধান্ত হয়। গত বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ ব্যাংক তাঁর পরিচালক পদের অনুমোদন দেয়।

যোগাযোগ করা হলে সাহাবুদ্দিন চুপ্পু বলেন, ‘পরিচালক হিসেবে মনোনয়ন পেয়েছি এটুকু জানি। কারা আমাকে পরিচালক বানিয়েছে, এটা জানা নেই। পুরো বিষয়টা এখনো জানানো হয়নি, কোনো নথিপত্রও দেওয়া হয়নি। এ কারণে বিস্তারিত বক্তব্য দেওয়া সম্ভব নয়।’

এদিকে গত সপ্তাহে ইসলামী ব্যাংকের পর্ষদ সভায় এক্সেলশিওর ইমপেক্সের পক্ষে সাবেক ব্যাংকার সৈয়দ আবু আসাদকে পরিচালক হিসেবে নিয়োগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। যোগাযোগ করা হলে আবু আসাদ বলেন, ‘এ বিষয়ে প্রতিষ্ঠান ও ব্যাংকের পক্ষ থেকে আমার সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। তবে প্রতিষ্ঠানটি সম্পর্কে বিস্তারিত কিছু জানি না। চট্টগ্রামের বলে শুনেছি।’

ইসলামী ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, গত মে মাসে আইডিবি ৮ কোটি ৬৯ লাখ শেয়ার বিক্রি করায় ব্যাংকটিতে তাদের অংশীদারত্ব কমে হয়েছে ২ দশমিক ১০ শতাংশ। এ ছাড়া গত মাসে ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন অব বাংলাদেশও ব্যাংকটির ১৪ লাখ ১৫ হাজার শেয়ার ক্রয় করে। এক্সেল ডাইং অ্যান্ড প্রিন্টিং নতুন করে ৩ কোটি ২০ লাখ শেয়ার কেনার এক সপ্তাহের মধ্যে আবার ৯৬ লাখ ৬০ হাজার শেয়ার বিক্রিও করে দেয়।

জানা গেছে, সিংহভাগ শেয়ার কেনা এক্সেল ডাইং অ্যান্ড প্রিন্টিংয়ের চেয়ারম্যান বদরুন নেসা আলম ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক ওয়াহিদুল আলম শেঠ। ওয়াহিদুল আলম শেঠ আবার ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের পরিচালক। এক্সেল ডাইংয়ের প্রতিনিধি হিসেবে ইসলামী ব্যাংকের পরিচালক সিরাজুল করিম। তিনি বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক অধ্যাপক।

গত ৫ জানুয়ারি ইসলামী ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের সভায় হঠাৎ ব্যাংকটির চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) পদত্যাগ করেন। এসব পরিবর্তনে উদ্বেগ প্রকাশ করে অর্থমন্ত্রীকে একাধিকবার চিঠি দেন আইডিবির প্রেসিডেন্ট বন্দর এম এইচ হাজ্জার। এরপরই বড় অংশের শেয়ার ছেড়ে দেয় বিদেশি এই সংস্থাটি।

সূত্রঃ প্রথম আলো

Leave a Reply